ম্যাজিক জয়ার…

0
57

বিনোদন রিপোর্ট : ঢাকা ও কলকাতা। শুটিংয়ের কারণে দুই জায়গাতেই বেশি থাকতে হয় অভিনেত্রী জয়া আহসানকে। আর গত কয়েক বছরের সমীকরণে দেখা যাবে জয়া আহসানের ছবি মানেই যেন নতুন কিছু। নতুনভাবে দর্শকের সামনে প্রতিনিয়ত আসছেন তিনি, আর পাচ্ছেন বেশ সফলতা। দেশের ছবির পাশাপাশি ২০১৩ সালে টালিগঞ্জে জয়ার জয়যাত্রা শুরু হয়। প্রথম থেকেই নিজের কাজের ভেতর দিয়ে দর্শক ও নির্মাতার নজর কেড়েছেন এ অভিনেত্রী।
অরিন্দম শীল পরিচালিত ‘আবর্ত’ ছবির মাধ্যমে কলকাতায় তার পথচলা শুরু। এরপরে ‘একটি বাঙালি ভূতের গপ্পো’, ‘ঈগলের চোখ’, ‘রাজ কাহিনী’, ‘ভালোবাসার শহর’ ও ‘বিসর্জন’ নামের ছবিগুলোতে দুর্দান্ত অভিনয় করে ওপার বাংলার দর্শকের মন জয় করেন। বলতে গেলে অল্প সময়ে বেশ মর্যাদার আসন পান তিনি। আর গেল বছর স্বীকৃতির শুরুটা হয়েছিল টিভি চ্যানেল এবিপি আনন্দ প্রবর্তিত ‘সেরা বাঙালি পুরস্কার’ দিয়ে। গত জুলাই মাসে তিনি এটা অর্জন করেন। আর বছর শেষে অর্থাৎ ডিসেম্বরে তার হাতে আসে ‘জি সিনে অ্যাওয়ার্ডস’। এখানেই শেষ না। জয়ার ঝুলিতে পুরস্কার হিসেবে আরো রয়েছে হায়দরাবাদ চলচ্চিত্র উৎসবে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী, ‘ইন্টারন্যাশনাল বাঙালি ফিল্ম অ্যাওয়ার্ড’-এ শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী এবং যুক্তরাষ্ট্রের ‘ক্যালাইডস্কোপ ফিল্ম  ফেস্টিভ্যাল’-এ শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রীর পুরস্কার। এছাড়া আনন্দবাজার পত্রিকা টালিউড নায়িকাদের নিয়ে যে শীর্ষ তালিকা তৈরি করছে এবার, সেখানে জয়া আহসান সবার চেয়ে এগিয়ে আছেন। এ যেমন তার ব্যক্তিগত অর্জন, আমাদের দেশের জন্যও বেশ গর্বের বিষয়। তবে এসব বিষয়ে জয়ার ভাষ্য- যখন দেখি আমার স্বীকৃতির সঙ্গে সঙ্গে উচ্চারিত হচ্ছে বাংলাদেশের নাম, তখন আমার মনে এক অন্যরকম
ভালোলাগা কাজ করে। আমি আসলে কাজ করে চলেছি, স্বীকৃতির কথা ভাবিনি। শুধু ভাগ্য নয়, ভাগ্য আর কর্ম দুটোতেই বিশ্বাসী আমি। কারণ আমার হিসেবে কাজই ভাগ্য নিয়ন্ত্রণ করে। জয়া আহসানের ‘বিসর্জন’ ছবিটি ভারতের জাতীয় পুরস্কার পায়। কৌশিক গাঙ্গুলির ছবি ‘বিসর্জন’। যার প্রধান দুটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন জয়া আহসান ও আবির চ্যাটার্জি। মুক্তির পর থেকে বেশ প্রশংসায় ভাসছে ছবিটি। সমালোচকদেরও মন কেড়ে নিয়েছেন জয়া। এ ছাড়া সৃজিত মুখার্জির ‘বেগমজান’ ছবির প্রচারণার কাজে কলকাতায় আসেন বলিউড অভিনেত্রী বিদ্যা বালান। তার ফাঁকে রাতে একটি হোটেলে পার্টির আয়োজন করেন সৃজিত।  সেখানে তার ‘রাজ কাহিনী’ ছবির শিল্পীদেরও আমন্ত্রণ জানান। বাংলা ‘রাজ কাহিনী’ ছবিতে অভিনয় করেছিলেন জয়া আহসান। এর আগে সংবাদ মাধ্যমে ‘রাজ কাহিনী’ ছবিতে জয়ার অভিনয় দেখে নিজের মুগ্ধতার কথা বলেছিলেন বিদ্যা। এবার পার্টিতে জয়াকে কাছে পেয়ে দারুণ খুশি হন। আর বাংলাদেশে অনিমেষ আইচ পরিচালিত বাংলাদেশের চলচ্চিত্র ‘জিরো ডিগ্রি’তে অভিনয় করে ২০১৫ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারটিও প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে জয়া গ্রহণ করেছেন গেল বছর। ২০১৫-এর পুরস্কার হলেও তিনি এটি হাতে পেলেন দুই বছর পর, ২০১৭- তে এসে। এদিকে গত শুক্রবারের বিকালটা সিলেটে শিশুদের সঙ্গে কাটিয়েছেন জয়া। সিলেটে একটি স্কুলের উদ্বোধন করেন তিনি। সিলেটের কাজী টোলায় চালু হয়েছে ‘কিডস ক্যাম্পাস’ নামের স্কুল ও থিম পার্ক। খুদে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বিকালে কাটানো সময়কে ‘দারুণ’ বলে অভিহিত করেছেন জয়া আহসান। এখন বাংলাদেশের পাশাপাশি ভারতীয় চলচ্চিত্রের অপরিহার্য অভিনেত্রী হয়ে উঠছেন জয়া আহসান। সবকিছু মিলিয়ে বলা যায়, জয়া যেন দুই বাংলায় এখন ম্যাজিক দেখিয়ে যাচ্ছেন।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here