সুপার ওভারে বিবর্ণ মুস্তাফিজ, ম্যাচ হারল লাহোর

0
164

ক্রীড়া ডেস্ক: প্রথম তিন ম্যাচে লাহোর কালান্দার্সের সেরা বোলার ছিলেন মুস্তাফিজুর রহমান। শুক্রবার চতুর্থ ম্যাচের শুরু থেকেই খুঁজে পাওয়া গেল না তাকে। ম্যাচও হেরেছে তার দল।
বোলিংয়ে ৪ ওভারে খরচ করেছিলেন ৩৯ রান, উইকেট পেয়েছিলেন ১টি। তবুও তার ওপরে সুপার ওভারে ভরসা রেখেছিল টিম ম্যানেজম্যান্ট। কিন্তু বাঁহাতি পেসার দুই ছক্কা ও এক চার হজম করে দলকে হারিয়েছেন সুপার ওভারে।
শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে ৯ উইকেটে ১২১ রান করে ইসলামাবাদ ইউনাইটেড। জবাবে ইনিংসের শেষ বলে শেষ উইকেট হারিয়ে লাহোরও করে ১২১ রান। টাই হওয়ায় ম্যাচ গড়ায় সুপার ওভারে।
সুপার ওভারে আগে ব্যাটিং করে লাহোর ১ উইকেটে তুলে ১৫ রান। ইসলামাবাদকে ১৬ রান টার্গেট দিয়ে লাহোর শিবিরকে বেশ চনমনেই লাগছিল। তবে কে বল করবেন তা নিয়ে ছিল ধোঁয়াশা। ৩৯ রান দেওয়া মুস্তাফিজকে নিয়ে ঝুঁকি নিয়েছিল ঠিকই। কিন্তু মুস্তাফিজ হতে পারেননি নায়ক।
প্রথম বলে আন্দ্রে রাসেল নেন এক রান। মুস্তাফিজের স্লোয়ার ঠিকমত পিক করে দ্বিতীয় বলে লং অন দিয়ে ছক্কা হাঁকান আসিফ আলী। একটুর জন্য অবশ্য ম্যাককালামের হাতে বল আসেনি। নয়তো শুরুতেই এগিয়ে যেত লাহোর। তৃতীয় বল ডট। চতুর্থ বলটিও ডট হতে পারত। কিন্তু উইকেটের পিছনে দাঁড়িয়ে দিনেশ রামদিন বল তালুবন্দি করতে ব্যর্থ।
প্রান্ত বদলে রাসেল ফিরেন স্ট্রাইকে। ওয়াইড ইয়র্কার করতে গিয়ে মুস্তাফিজ পরের বলটি দেন ওয়াইড। পঞ্চম বলে টপ এজে চার মারেন রাসেল। শেষ বলে দরকার ৩ রান। এবার বাঁহাতি পেসার দিলেন শ্লোয়ার। কিন্তু কাজ হলো না। হার্ডহিটার রাসেল শরীরের পুরো শক্তি দিয়ে বল পাঠালেন লং অন দিয়ে বাউন্ডারির বাইরে। ১৯ রান তুলে ম্যাচ জিতে নেয় ইসলামাবাদ ইউনাইটেড।
আগের তিন ম্যাচে মুস্তাফিজুর রহমান ছিলেন নিয়ন্ত্রিত, কিপটে। কিন্তু গতকাল শুরু থেকেই তার বোলিংয়ে ছিল না ছন্দ। উইকেটে তার কাটারগুলো ধরছিলও না ঠিকমত। সব মিলিয়ে বাজে এক রাত কাটিয়েছেন বাংলাদেশি এ পেসার।
এর আগে ইসলামাবাদের হয়ে সর্বোচ্চ ৩৪ রান করেন জেপি ডুমিনি। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩৩ রান করেন হুসাইন তালাত। মুস্তাফিজ বোলিংয়ে নেন শাদাব খানের উইকেট।
জবাবে লাহোর সালমানের ৪৮ ও ব্রেন্ডন ম্যাককালামের ৩৪ রানে জয়ের পথেই ছিল। কিন্তু মাঝে দ্রুত উইকেট হারিয়ে পথ হারায় তারা। এরপর আর ম্যাচে ফিরতে পারেননি।
বোলিংয়ে ৩.৪ ওভারে ২১ রান দিয়ে ম্যাচসেরা নির্বাচিত হন মোহাম্মদ সামি।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here