আমার সব বাজেট নির্বাচনী বাজেট

0
57

সাংবাদিক সম্মেলনে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত
নিজস্ব প্রতিবেদক : অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, তাঁর সব বাজেটই নির্বাচনী বাজেট। মানুষ পছন্দ করবে এমন বাজেটই তিনি দেন। গতকাল  শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী এ কথা বলেন। সংবাদ সম্মেলনে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আমার সব বাজেট নির্বাচনী বাজেট। তা তো হবেই। আমি একটি দলের সদস্য এবং একজন গুরুত্বপূর্ণ সদস্য। আমার বাজেট তো এমন হবেই যেটা মানুষ পছন্দ করবে। এবং পছন্দটা করবে একদিনের জন্য না, জাস্ট ইলেকশনের বছরের জন্য না, প্রত্যেক বছর ধরে পছন্দ করবে।’রাজনৈতিক দলের একজন সদস্য হিসেবে আমাকে জনগণকে খুশি করতে হয়। এই বাজেট ‘গরীব মারার বাজেট’ কি-না এমন প্রশ্নের জবাবে সাংবাদিকদের সমালোচনা করে অর্থমন্ত্রী পাল্টা প্রশ্ন করে জানতে চান দেশে দরিদ্র মানুষ বাড়ছে কি-না। কেউ উত্তর না দিলে এক পর্যায়ে অর্থমন্ত্রী নিজেই উত্তর দিয়ে বলেন, ‘না, দেশে দরিদ্র মানুষ বাড়ছে না। এক সময় দেশে দরিদ্র মানুষের হার ছিল ৭০ শতাংশ। গত সাত বছর আগেও দেশে দরিদ্র মানুষের হার ছিল ৩০ শতাংশ। এখন দেশে দরিদ্র মানুষের হার ২২ দশমিক ৪ শতাংশ। সুতরাং এই বাজেট গরীব মারার বাজেট এই কথাটা ঠিক না বাজেটে করপোরেট ট্যাক্স হার কমানোর প্রস্তাব নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে মুহিত বলেন, ‘৪০ শতাংশের ওপর করপোরেট কর খুব কম দেশেই আছে। আমরাও সেটা নামিয়ে এনেছি।’ অনলাইনে কেনাবেচা সেবায় ৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপ যথাযথ হয়েছে কি-না জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘কেনাবেচার ওপরেই তো চার্জ বসানো হয়। অনলাইন কেনাবেচা এখন অনেক বেড়েছে। তাই চার্জ বসানো যেতেই পারে।’
২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেট বাস্তবায়নযোগ্য বলে মনে করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তিনি বলেন, মোটামুটি যে লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করেছি সেটাই হবে। মুহিত বলেন, বাজেট কী করে ভুয়া হতে পারে? এটা নির্বোধদের জন্যই ভুয়া হতে পারে। গতকাল শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর ওসমানী মিলনায়তনে বাজেট বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের এ সরকার যেভাবে সুযোগ সুবিধা দিয়েছে অন্য কোনও সরকার এ রকম দেয়নি। তিনি বলেন, এ বাজেটে ব্যাংক মালিক এবং শিল্পপতিদের ?সুবিধা দেওয়া হয়েছে।
সামাজিক সুরক্ষার জন্য পেনশনভোগী ও নারীদের আর্থিক নির্ভরতার জায়গা সঞ্চয়পত্রের সুদের হার বর্তমানে যে পর্যায়ে রয়েছে তা খুব শিগগির পর্যালোচনা করা হবে বলে জানালেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। সংবাদ সম্মেলনে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘সঞ্চয়পত্র নিয়ে আমি বক্তব্য বোধহয় কিছু দেই নাই। কিন্তু বলেছি, সঞ্চয়পত্রের যে বর্তমান মুনাফা আছে, সেখান থেকে পাওয়া যায়, সেটার জন্যে আমি দু-একবার সভাও দিয়েছিলাম। সভাটা করতে পারিনি। বাজেটের পরে পরেও একটা সভা করব এবং এটা রিভিউড (পর্যালোচনা) হয়।’‘এটা নিয়মই। সঞ্চয়পত্রের যে রেট, ইজ নেভার পার্মানেন্ট। এটা তিন বছরে প্রায়ই রিভিউ হয়। আমাদের মনে হয় এবারে রিভিউ করতে একটু দেরি হয়েছে। দ্যাটস সো, এটা বাজেটের মাসেই বা তার পরের মাসে রিভিউ হবে’, যোগ করেন অর্থমন্ত্রী। সংবাদ সম্মেলনে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল, তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান, প্রধানমন্ত্রীর অর্থ উপদেষ্টা ড. মশিউর রাহমান। এ ছাড়া সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরসহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সচিবরা।
প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে আগামী ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট পেশ করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। প্রস্তাবিত বাজেটে ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকা ব্যয়ের বিপরীতে মোট রাজস্ব আয় প্রাক্কলন করা হয়েছে ৩ লাখ ৩৯ হাজার ২৮০ কোটি টাকা, যা জিডিপির ১৩ দশমিক ৪ শতাংশ। এতে আয়-ব্যয়ের ঘাটতি দাঁড়াবে ১ লাখ ২৫ হাজার ২৯৩ কোটি টাকা, যা জিডিপির ৪ দশমিক ৯ শতাংশ। প্রস্তাবিত বাজেটে মোট দেশজ উৎপাদনে (জিডিপি) প্রবৃদ্ধির হার প্রাক্কলন করা হয়েছে ৭ দশমিক ৮ শতাংশ। এছাড়া গড় মূল্যস্ফীতি প্রাক্কলন করা হয়েছে ৫ দশমিক ৬ শতাংশ।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here