ভারতকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশের মেয়েরা

0
40

টি-টোয়েন্টি এশিয়া কাপে অবিস্মরণীয় জয়
নিউজ ডেস্ক : রবিবার কুয়ালা লামপুরের কিনরারা ওভালে এশিয়া কাপের ফাইনালে মুখোমুখি হয়েছিল ভারত-বাংলাদেশ।
রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে ছয়বারের চ্যাম্পিয়ন ভারতকে মেয়েদের এশিয়া কাপ টি-টোয়েন্টিতে ৩ উইকেটে হারিয়ে প্রথমবারের মতো শিরোপা জিতল বাংলাদেশ। শ্বাসরুদ্ধকর এ জয়ে বাংলাদেশের প্রমীলা ক্রিকেট দলকে অভিনন্দন জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শেষ ওভারে ভারতের দেয়া ১১৩ রানের লক্ষ্য ছুঁতে বাংলাদেশের প্রয়োজন ছিল ৯ রান। প্রথম বলে ১ রান নেয়ার পর দ্বিতীয় বলে চার ও তৃতীয় বলে এক রান নেন রুমানা আহমেদ। এরপর পরপর দুই বলে উইকেট গেলে, শেষ বলে বাংলাদেশ দলের জয়ের জন্য ২ রান প্রয়োজন ছিল।
সাবেক অধিনায়ক জাহানারা আলাম ২ রান নিলে চ্যাম্পিয়ন হয় বাংলাদেশ। এর মধ্য দিয়ে ইতিহাস গড়লো বাংলাদেশ। কুয়ালালামপুরে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ১১২ রান সংগ্রহ করে ভারত। শুরুতেই ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের চেপে ধরতে সক্ষম হয়েছিল বাংলাদেশ। দলীয় ১২ রানে স্মৃতি মন্ধানাকে ফিরিয়ে ভিতি ছাড়ানো শুরু সালমাদের। তাকে রান আউট করেন অধিনায়ক সালমা। ৩২ রানে চার উইকেট হারিয়ে সেই চাপ আরও বাড়ে ভারতের। তবে, একপ্রান্তে থেকে রানের চাকা সচল রেখেছেন অধিনায়ক হারমানপ্রীত। তার দায়িত্বশীল ৫৬ রানের ইনিংসে ভর করে ৯ উইকেটে ১১২ রানে থমকে যায় ভারত।  তার ৪২ বলের ইনিংসে ছিল ৭টি চার। দুটি করে উইকেট নেন খাদিজা তুল কুবরা ও রুমানা আহমেদ। একটি করে উইকেট নেন সালমা খাতুন ও জাহানারা।
প্রতিপক্ষের দেয়া ১১৩ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে খুব বেশি বেগ পেতে হয়নি বাংলাদেশের। জাহানার-শুকতারার ব্যাটে সহজেই এসেছে জয়। ওপেনিং জুটিতে আয়েশা ও শামিমা শুরুটা ভালোই করেছিলেন। তবে ভারতীয় স্পিনার পূনম যাদবের পর পর দুই বলে আয়েশা (১৬) ও শামিমা (১৭) সাজঘরে ফিরলে কিছুটা বিপদে পড়ে গিয়েছিল বাংলাদেশ। এই জুটিতে আসে ৩৫ রান। দুই ওপেনারকে হারিয়ে ভারতের বিপক্ষে গ্রুপ পর্বে হাফসেঞ্চুরি করা ফারজানা হক ও মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান নিগার সুলতানা দেখে শুনে খেলতে থাকেন। যদিও অফস্ট্যাম্পের বাইরের একটি বল খেলতে গিয়ে উইকেট কিপারের হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন ফারজানা (১১)। চতুর্থ উইকেটে নিগার ও অধিনায়ক রুমানা মিলে জয়ের কাছেই নিয়ে যাচ্ছিলেন দলকে। আচমকা বাংলাদেশ শিবিরে চিন্তার ভাঁজ ফেলে দেন ক্যাচ আউট হয়ে। পূনম যাদবের ফুলটস বল মিড অনে খেলতে গিয়ে ক্যাচ তুলে দিলে দারুণ একটি ইনিংসের সমাপ্তি ঘটে। ২৪ বলে ৪ চারে ২৭ রানের ইনিংস খেলেন নিগার।
বাকি দায়িত্বটুকু সামলাচ্ছিলেন ফাহিমা-রুমানা। আর শেষ দিকেই নড়বড়ে পরিস্থিতিতে পড়ে যায় বাংলাদেশ। সাত রান করে আউট হন ফাহিমা। ৬ষ্ঠ উইকেটে সানজিদা ও রুমানা মিলে জয়ের কাছেই ছিলেন। কিন্তু সানজিদা বাউন্ডারি লাইনে ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেয়ার পর পর রুমানাও ফিরে যান রান আউটে। ফেরার আগে ২২ বলে ২৩ রানের ইনিংস খেলেন অভিজ্ঞ এই অলরাউন্ডার। শেষ বলে জয়ের জন্য প্রয়োজন ছিল দুই রান। জাহানারা বলটি বাঁ পাশে ঠেলে দিয়ে প্রয়োজনীয় রান নিলে প্রথমবারের মতো শিরোপা জেতে বাংলাদেশ। খেলায় ম্যাচসেরা হয়েছেন রুমানা আহমেদ। টুর্নামেন্ট সেরা ভারতের অধিনায়ক হারমানপ্রীত কর।
মেয়েদের এশিয়া কাপ ২০০৪ থেকে শুরু হয়েছে । ভারত গত ৬ বারের সবগুলোতেই চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। বাংলাদেশ এবারের আসরসহ তিনটি আসরে মাঠে নেমেছে। আগের দুই আসরে সাদামাটা পারফরম্যান্স করলেও তৃতীয় আসরে শিরোপা জেতার স্বাদ পেল সালমারা।  গতকাল রোববার মালয়েশিয়ার কুলালামপুরে অনুষ্ঠিত নারী এশিয়া কাপ টি-টোয়েন্টির ফাইনালে টস জিতে ভারতকে ব্যাট করার আমন্ত্রন জানান বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক সালমা খাতুন। প্রথমে ব্যাট করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ১১২ রান সংগ্রহ করে ভারত। জবাবে ৭ উইকেট হারিয়ে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় মেয়েরা। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কোনো দ্বিপক্ষীয় সিরিজ জেতেনি বাংলাদেশ। সেটি ছেলেদের ক্রিকেট হোক কিংবা মেয়েদের। দীর্ঘদিন এই শিরোপা-শূন্যতা দূর করলেন বাংলাদেশের মেয়েরা। টুর্নামেন্টজুড়ে দুর্দান্ত খেলেছে বাংলাদেশের মেয়েরা। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে নিজেদের প্রথম ম্যাচে হারলেও টানা চার জয় নিয়ে ফাইনালে উঠেছেন সালমারা। এই সিরিজে দু’বার ভারতকে হারিয়ে ইতিহাস গড়লেন সালমা-রুমানারা। বাংলাদেশের জয়ের পথে ব্যাট হাতে অনন্য ভূমিকা পালন করেছেন সালমা ও রুমানা আহমেদ। দুজনের ব্যক্তিগত সংগ্রহ যথাক্রমে ২৭ ও ২৩ রান। রুমানা আহমেদ বল হাতেও নিয়েছেন দুই উইকেট।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here