মন্ত্রিসভায় সড়ক পরিবহন আইনের খসড়ার চুড়ান্ত অনুমোদন

0
122

বেপরোয়া গাড়ি চালনায় কেউ দুর্ঘটনার শিকার হয়ে মারাত্মক আহত বা নিহত হলে চালকের সর্বোচ্চ ৫ বছরের কারাদন্ড এবং জরিমানার বিধান রেখে ‘সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮’ এর খসড়ার চ‚ড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। বিদ্যমান আইনে একই অপরাধে ৩ বছরের কারাদন্ডের বিধান ছিল। গতকাল সোমবার সচিবালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠকে এই অনুমোদন দেয়া হয়। বৈঠকের পরে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম সাংবাদিকদের ব্রিফিংয়ে জানান, বেপরোয়া গাড়ি চালানোর মাধ্যমে গুরুতর আহত বা প্রাণহানি ঘটালে এখন নতুন আইনে তার জন্য ৫ বছরের কারাদন্ডের বিধান রাখা হয়েছে। অতীতে যেটি ৩ বছরের কারাদন্ডের বিধান ছিল। রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে বাস চাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার পর নিরাপদ সড়ক বাস্তবায়নের দাবিতে রাজধানী জুড়ে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে সড়ক ও জনপথ বিভাগ নতুন আইনের খসড়াটি মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে উত্থাপন করে। ‘১৯৮৩ সালের মোটরযান অধ্যাদেশ সংশোধন ও পরিমার্জন করে এই আইনটি করা হয়েছে যেখানে ড্রাইভিং লাইসেন্সের বিপরীতে পয়েন্ট সিস্টেম চালুর বিধান সংযুক্ত করা হয়েছে’, বলেন তিনি। তিনি বলেন, ড্রাইভিং লাইসেন্সের বিষয়ে নতুন আইনে বলা হয়েছে, অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্সের ক্ষেত্রে বয়স ১৮ এবং পেশাদার চালকদের লাইসেন্স পেতে বয়স ২১ হতে হবে। চালকের অপরাধের জন্য ১২ পয়েন্ট বরাদ্দ থাকবে। তার যেকোনো অপরাধের দোষসূচক পয়েন্ট কাটা যাবে। পয়েন্ট শেষ হলে তার লাইসেন্স বাতিল হবে। এছাড়া, কোনো ব্যক্তি মেয়াদোত্তীর্ণ লাইসেন্স ব্যবহার করে জনসমক্ষে কোনো গাড়ি চালাতে পারবেন না। গণপরিবহন চালানোর জন্য আলাদা অনুমতি লাগবে। আলম বলেন, ‘বেপরোয়া গাড়ি চালানোর মাধ্যমে মৃত্যু হলে তদন্তে যদি প্রমাণিত হয় এটা ইচ্ছাকৃত ছিল তবে দন্ডবিধি ৩০২ ধারা অনুযায়ী তার বিচার হবে। এটার শাস্তি হবে মৃত্যুদন্ড।’মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, তবে খসড়া আইনে বেপরোয়া গাড়ি চালনার জন্য জরিমানার সীমা উল্লেখ করা হয়নি। এটি বিচারাধীন মামলার বিচারকের ওপর ছাড়া হয়েছে।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here