দুদেশের মধ্যে সহযোগিতা বাড়ানোর প্রস্তাব

0
77

ভারত-বাংলাদেশ সীমান্ত বৈঠক
বাংলাদেশ ও ভারতের সীমান্ত বাহিনীর মধ্যে বোঝাপড়া ও সহযোগিতা বাড়ানোর ওপর জোর দেওয়া হয়েছে। গতকাল সোমবার থেকে শীর্ষ পর্যায়ের যে সম্মেলন শুরু হয়েছে দুই দেশের সীমান্ত বাহিনীর মধ্যে। দুদদেশের এই দুটো বাহিনীর মধ্যে আস্থা বাড়ানোর লক্ষ্যে উভয়পক্ষের তরফে ভিন্ন ভিন্ন কিছু কর্মসূচিরও প্রস্তাব করা হয়েছে বলে জানা গেছে। পাঁচ দিনের এই বৈঠকের আলোচ্য সূচিতে যেসব বিষয়ের কথা উল্লেখ করা হয়েছে তার মধ্যে সীমান্ত এলাকায় অপরাধ দমনের জন্যে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা যেমন বলা হয়েছে তেমনি রয়েছে ভারতে বাংলাদেশি সীমান্ত রক্ষীদের সন্তানদের উচ্চ শিক্ষা এবং তাদের স্ত্রীদের ভারত সফরের মতো বিষয়ও। দিল্লিতে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষা বাহিনী বিএসএফের দেওয়া এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এসব আলোচ্য বিষয়ের কথা উল্লেখ করা হয়েছে।কিন্তু এসব এজেন্ডায় কোন পক্ষের তরফ থেকেই সীমান্তে হত্যাকাÐের কথা উল্লেখ করা হয়নি। মানবাধিকার সংগঠন অধিকারের হিসেবে এ বছর বিএসএফের হাতে তিনজন বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন ১১ জন আর ৯ জন অপহৃত হয়েছেন।অধিকার বলছে, ২০০০ সালের পর থেকে গত ১৮ বছরে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষীদের হাতে ১,১৩৬ জন বাংলাদেশী প্রাণ হারিয়েছে।বিএসএফের এজেন্ডায় সীমান্তের সঙ্গে সরাসরি সম্পর্কিত কিছু বিষয়ের উল্লেখ থাকলেও বাংলাদেশের সীমান্ত রক্ষা বাহিনী বিজিবির এজেন্ডায় দেখা যাচ্ছে সেখানে তাদের সন্তানদের লেখাপড়ার ভবিষ্যৎ, বন্ধুত্বপূর্ণ খেলাধুলা এবং নানা ধরনের বিনোদনধর্মী কর্মসূচির কথা উল্লেখ করা হয়েছে।বাহিনীর মহাসচিব পর্যায়ের এই বৈঠকে বিজিবির পক্ষ থেকে আলোচনার জন্যে যেসব বিষয় প্রস্তাব করা হয়েছে তার মধ্যে রয়েছে উভয় পক্ষের পছন্দের একটি জায়গায় যৌথভাবে দমিলন মেলাদ আয়োজন করা, বন্ধুত্বপূর্ণ ক্রীড়া অনুষ্ঠান, সাইক্লিং, হাইকিং, রোয়িং-রাফটিং বা নৌকা বাইচের আয়োজন, পর্বতারোহণ, দুই বাহিনীর যে বাজনার দল বা মিউজিক ব্যান্ড আছে সীমান্ত এলাকায় তাদের যৌথ অনুষ্ঠান, দুই বাহিনীর মধ্যে শুটিং প্রতিযোগিতা ইত্যাদি।আলোচনার জন্যে বিজিবির পক্ষ থেকে তাদের পরিবার পরিজনদের জন্যেও কিছু কর্মসূচির বিষয়ে বৈঠকে আলোচনার প্রস্তাব করা হয়েছে।যেমন বিজিবি ও বিএসফ এই দুই বাহিনীর কর্মকর্তাদের স্ত্রীদের ভারত ও বাংলাদেশ সফর। ভারতে বিজিবির কর্মকর্তাদের সন্তানদের উচ্চ শিক্ষা।
বাংলাদেশের সীমান্ত বাহিনী বিজিবির পক্ষ থেকে ভারতে বাংলাদেশি স্কুল-শিশু, ডাক্তার ও সাংবাদিকদের ভারত সফরেরও প্রস্তাব করা হয়েছে। বিএসএফ ও বিজিবির সদস্যদের মধ্যে গত কয়েক বছর ধরে ভলিবল, বাস্কেটবল, ব্যাডমিন্টন বা হকির প্রীতি ম্যাচের আয়োজন করা হচ্ছে- বিজিবির এজেন্ডাতেও এই সব বন্ধুত্বপূর্ণ খেলাধুলোর কথা উল্লেখ করা হয়েছে। বছরে দুবার এই মহাসচিব পর্যায়ের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এবার হচ্ছে দিল্লিতে। শেষ বৈঠকটি হয়েছিল ঢাকায় গত এপ্রিল মাসে।এবারের এই ৪৭তম বৈঠকে বিএসএফের প্রধান কে কে শর্মা এবং বিজিবির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোহাম্মদ সাফিনুল ইসলাম নেতৃত্ব দিচ্ছেন।এজেন্ডায় ভারতের পক্ষ থেকে যেসব বিষয়ের কথা উল্লেখ করা হয়েছে তার মধ্যে রয়েছে বিএসফের সদস্যদের উপর বাংলাদেশি দুষ্কৃতিদের হামলা ঠেকানো, সীমান্ত এলাকায় অপরাধ বন্ধে যৌথ উদ্যোগ, ভারতীয় বিদ্রোহী গ্রæপগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া, সীমান্ত অবকাঠামো, যৌথ টহল, নাজুক এলাকা চিহ্নিত করা এবং তথ্য বিনিময়।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here