পুলিশের কর্মকর্তারা যে সাজা পেলেন

0
20

আওয়ামী লীগের সমাবেশে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায়ে ১৯ জনকে মৃত্যুদÐ, ১৯ জনকে যাবজ্জীবন এবং বাকি ১১ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ড দিয়েছেন বিশেষ ট্রাইব্যুনাল। ১১ জনের মধ্যে চারজনকে তিন বছরের কারাদÐ ও বাকি সাতজনকে দুই বছর করে কারাদÐ দিয়েছেন আদালত। এ মামলায় মোট আসামির সংখ্যা ৪৯ জন। গতকাল রাজধানীর নাজিমুদ্দিন রোডে পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগারের পাশে স্থাপিত ঢাকার ১ নম্বর দ্রæত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক শাহেদ নূর উদ্দিনের আদালত এ রায় দেন।
রায়ে পুলিশের সাবেক মহাপরিচালক (আইজিপি) খোদা বক্স চৌধুরী, সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার (অব.) রুহুল আমিন, এএসপি (অব.) আবদুর রশিদ ও এএসপি (অব.) মুন্সি আতিকুর রহমানকে তিন বছর করে কারাদন্ড দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া তাঁদের ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। অনাদায়ে আরো ছয় মাসের কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। এ ছাড়া বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ভাগ্নে লেফটেন্যান্ট কমান্ডার (অব.) সাইফুল ইসলাম ডিউক, আইজিপি আশরাফুল হুদা, আইজিপি শহুদুল হক, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) এ টি এম আমিন (আমেরিকায়), লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অব.) সাইফুল ইসলাম জোয়ারদার, ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) উপকমিশনার (পূর্ব) ওবায়দুর রহমান ও ডিএমপির উপকমিশনার (দক্ষিণ) খান সাঈদ হাসানকে দুই বছর করে কারাদন্ড দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি তাঁদের ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা, অনাদায়ে আরো ছয় মাস করে কারাদন্ড দেওয়া হয়েছে। আদালত রায়ে আরো বলেছেন, সাজার মেয়াদ কারাবাসকালীন থেকে বাদ যাবে।
বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে দলটির সন্ত্রাসবিরোধী সমাবেশে ভয়াবহ গ্রেনেড হামলার ঘটনা ঘটে। ওই নৃশংস হামলায় ২৪ জন নিহত ও নেতাকর্মী-আইনজীবী-সাংবাদিকসহ পাঁচ শতাধিক লোক আহত হন। নিহতদের মধ্যে ছিলেন তৎকালীন মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের স্ত্রী আইভি রহমান।
তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং আওয়ামী লীগের প্রথম সারির অন্যান্য নেতা এই গ্রেনেড হামলা থেকে বেঁচে যান। এতে অল্পের জন্য শেখ হাসিনা প্রাণে বেঁচে গেলেও গ্রেনেডের প্রচন্ড শব্দে তাঁর শ্রবণশক্তিতে আঘাতপ্রাপ্ত হয়।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here