নির্বাচনকালীন সরকারের আকার নিয়ে সিদ্ধান্ত চলতি সপ্তাহে : কাদের

0
22

নিজস্ব প্রতিবেদক: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে আগামী ২৬ অক্টোবর নির্বাচনকালীন সরকারের আকার নিয়ে সিদ্ধান্ত হবে বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। গতকাল মঙ্গলবার সচিবালয়ে সমসাময়িক রাজনৈতিক ইস্যু নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে এবার মন্ত্রিসভার আকারে বড় কোনো পরিবর্তন নাও আনা হতে পারে বলে গতকাল মঙ্গলবার গণভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে ইঙ্গিত দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, বর্তমান মন্ত্রিসভায় সব দলের প্রতিনিধিই আছেন। আর নির্বাচনকালীন সরকারের আকার ছোট করা হলে উন্নয়ন প্রকল্পের বাস্তবায়ন বাধাগ্রস্ত হতে পারে। প্রধানমন্ত্রীর ওই বক্তব্যের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আগামী ২৬ অক্টোবর সব সিদ্ধান্ত হবে। সেদিন ওয়ার্কিং কমিটি, উপদেষ্টা কমিটি ও পার্লামেন্টারি কমিটির সভা হবে।’তিনি আরও বলেন, ‘মন্ত্রিসভার আকার ছোট হলে নতুন করে দু’একজন যুক্ত হবেন, আর আকার বর্তমানের মতো থাকলেও দু’একজন যুক্ত হতে পারেন।’এর আগে গত সোমবার রাজধানীর  এক অনুষ্ঠানে ওবায়দুল কাদের জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সংলাপের দাবিকে নাকচ করে দিয়ে বলেছেন, সংবিধান অনুযায়ী আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। তিনি বলেন, ঐক্যফ্রন্টের সাত দফা দাবী অবাস্তব ও অপ্রয়োজনীয়। কাজেই তাদের এ ধরনের দাবি মানারও কোনো যৌক্তিকতা নেই। নির্বাচনের আগে সংলাপের সময়ও হাতে নেই। তিনি আরও বলেন, আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহে জাতীয় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা হয়ে যাবে। নির্বাচন কমিশন (ইসি) মোটামুটি এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছে। নির্বাচনের আগে আর বেশি সময় হাতে নেই। এ অল্প সময়ের মধ্যে সংলাপ করার মতো যেমন পর্যাপ্ত সময় নেই, তেমনি সংলাপের বাস্তব কোনো কারণও নেই।
ওবায়দুল কাদের বলেন, তবে এটা পরিষ্কার যে মন্ত্রিপরিষদ ছোট হওয়ার সম্ভাবনা নেই। গতকাল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেভাবে বলেছেন সেভাবেই সবকিছু হবে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে যদি পূর্ণাঙ্গ মন্ত্রিপরিষদ থেকে নির্বাচন হয় তাহলে বাংলাদেশে হতে কোনো সমস্যা দেখছি না। গতবার ভিন্ন প্রেক্ষাপট ছিল। সেবার বিএনপি নির্বাচনে আসেনি। ফলে প্রধানমন্ত্রী নিজের থেকে মন্ত্রিপরিষদ ছোট করে নির্বাচন করেছেন। এবার বিএনপি নির্বাচনের আসার ঘোষণা দিয়েছে। এবার প্রেক্ষাপট ভিন্ন; তাই মন্ত্রিপরিষদ ছোট হওয়ার দরকার নেই, যোগ করেন ওবায়দুল কাদের। নতুন কারা আসছেন মন্ত্রিসভায় এমন প্রশ্নের জবাবে সেতুমন্ত্রী বলেন, নতুন দুই একজন মন্ত্রী অপজিশন থেকে নেওয়া হতে পারে। বিষয়টি নেত্রী চূড়ান্ত করবেন। আপনারা যেটা বলেছেন তরিকত ফেডারেশন বা বিএনএফ থেকে নেওয়া হবে সেটা সঠিক নয়। এটা ওয়ার্কিং কমিটির মিটিংয়ের পরে পরিষ্কার জানা যাবে। মন্ত্রিসভা রেখে সুষ্ঠু নির্বাচন হবে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে সেতুমন্ত্রী বলেন, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনই হবে। রাজনৈতিক দলগুলো যারা নির্বাচনে অংশ নেবে তারা নির্বাচন কমিশনের আওতায় চলে যাবে, তখন মন্ত্রীদের দায়িত্ব কর্তব্য সীমিত হয়ে যাবে। কেবিনেট শুধু রুটিন ওয়ার্ক করবে, কোনো ধরনের মেজর ডিসিশন নিতে পারবে না। জাতীয় নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিত করা হবে কি না এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, নির্বাচনের শিডিউল ঘোষণার পর নির্বাচনী আচরণবিধি পুরোপুরি নির্বাচন কমিশনের আওতায় চলে যাবে। কমিশনের আচরণবিধি অনুযায়ী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here