ইভিএম ব্যবহারে বাধা দিলে ৭ বছরের জেল

0
54

নিজস্ব প্রতিবেদক: সর্বোচ্চ ৭ বছরের জেল ও সর্বনিম্ন ৩ বছরের কারাদন্ডের বিধান রেখে গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ (আরপিও) সংশোধনী আইন করা হয়েছে। ইভিএম মেশিন কেউ ভাঙ্গচুর, ডিভাইস নস্ট করলে বা এই মেশিন ব্যবহারে কেউ বাধা সৃষ্টি করলে এই শাস্তির বিধান করা হয়েছে। গতকাল সচিবালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিপরিষদ বৈঠকে এ সংশোধনী আইনের অনুমোদন দেওয়া হয়। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম।  গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ (আরপিও) এর সংশোধনীগুলো হলো- প্রথমত, ইভিএম পদ্ধতি ব্যবহার করা যাবে। এটি বাধ্যতামূলক নয়। কতগুলো কেন্দ্রে কীভাবে এটি ব্যবহার করা হবে সেটি নির্বাচন কমিশন দ্বারা নির্ধারণ করা হবে। দ্বিতীয়ত, মনোনয়নপত্র দাখিলের আগের দিন পর্যন্ত খেলাপি ঋণ পরিশোধ করা যাবে। আগে মনোনয়নপত্র দাখিলের সাত দিন আগে তা পরিশোধ করতে হতো। এর কারণ হিসেবে জানানো হয়- সময় যত বেশি পাবে, খেলাপি ঋণ তত বেশি আদায় হবে। তৃতীয়ত, ম্যান্যুয়াল পদ্ধতিতে মনোনয়নপত্র দাখিলের পাশাপাশি একই নিয়মে অনলাইনেও মনোনয়নপত্রও দাখিল করা যাবে। মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম আরও বলেন, যেহেতু সংসদ অধিবেশন শেষ হয়ে গেছে, সে কারণে এটা রাষ্ট্রপতির অধ্যাদেশ আকারে জারি করা হবে। সাংবাদিকদের সঙ্গে মন্ত্রিপরিষদ সচিবের কথা বলার সময় নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব হেলালুদ্দিন আহমদ উপস্থিত ছিলেন। তিনি জানান, ইভিএম মেশিন যদি কেউ ভাঙচুর করে বা ডিভাইস নষ্ট করে অথবা ব্যবহারে বাধা সৃষ্টি করে তাহলে সর্বোচ্চ ৭ বছরের জেল ও সর্বনিম্ন তিন বছরের কারাদÐের বিধান রাখা হয়েছে আইনে। নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দিন আহমদ আহমেদ বলেন, ‘যেসব কেন্দ্রে ইভিএম মেশিন ব্যবহার করা হবে, সেসব জায়গায় ইভিএম-এর পাশাপাশি ম্যানুয়াল পদ্ধতিও রাখা হবে। যদি ভোটগ্রহণের সময় ইভিএম মেশিনে সমস্যা দেখা দেয়, সেক্ষেত্রে ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে ভোটগ্রহণ হবে।’

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here