দেড় বছরের শিশুকন্যাকে সাগর স্নান, মহারাস্ট্রের দর্শক টানছে রাজা রামমোহন স্টাচু

0
258

সাকিল আহমেদ, কোলকাতা প্রতিনিধি : দেড় বছর বয়স মেয়েটার। তাকে নিয়ে সাগরে পূণ্য লাভের আশায় সাগরে ডুব দিলেন শিশু কন্যার মা ও আত্মীয় পরিজন। মহারাস্ট্রের জলগাঁও থেকে এসেছেন দেড় বছরের মা ও বাবা রবীন্দ্র মাধুকর। সঙ্গে ফুলের মতো ফুটফুটে শিশু শিবানী মাধুকর। বাছা কিছুই বোঝেনা। ঠান্ডায় কাঁপছে। ঠাকুরকে নমঃ করে ওর ভবিষ্যৎ জীবন শুভ কামনা করলেন শিশুটির বাবা মা। জীবনের কত হার্ডেলস পরিশ্রম করে এই পরিবার এসেছেন সাগর সঙ্গমে। ট্রেন, বাস, নদীনালা পার হতে হয়েছে পূণ্য তীর্থ গঙ্গাসাগরে। জীবন এরকম। পেশায় রাজ মিস্ত্রির কাজ করেন কুলপির রাজারামপূরের বাসিন্দা গোপাল মন্ডল। নেশা বহুরূপী সেজে আনন্দ দেয়া। বঙ্গোপসাগরের কূলে একটা টুলের উপর মূর্তিমান রাজা রামমোহন কে দেখে একটা বাচ্ছা তার বাবাকে জিজ্ঞেস করল বাবা ইনি রামমোহন? বাবা বললেন হ্যাঁ। ইনিই সেই রামমোহন রায়। যিনি বাংলার নবজাগরণের পথিকৃৎ। আরবী,, ফার্সি, বাংলা,ইংরেজি ভাষার পন্ডিত।  সুতরাং রামমোহনকে নমঃ ও প্রণাম। প্রণাম গ্রহণ করলেন বহুরুপী রামমোহন ও সঙ্গে জুটলো দশ টাকা প্রণামী। দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকতে কস্ট হয়না তোমার? শুনে রামমোহন বলল, কস্ট তো হয়, কিন্তু পেট যে বালাই ষাট। ঘরে বাচ্ছা। কিছু তো রোজগার করতে হয় ! সুন্দরবনের মেয়ে কৃষ্ণা দাস। প্রতি বছরের মতো এবারও এসেছে বহুরুপী সেজে। শ্রীকৃষ্ণ সেজে ঝড় খালির মেয়ে রোজগার করছে সংসার চালাতে। লক্ষ লক্ষ মানুষ সুশৃংখলভাবে সাগর স্নান করছেন। টহল দিচ্ছে হোভারক্রাফট। বিপর্যয় মোকাবিলা দফতর এবংকয়েক হাজার পুলিশ কর্মী টহল দিচ্ছেন সমুদ্র পাড় বরাবর। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মেলা অফিসে সাংবাদিক সন্মেলনে জন স্বাস্থ্য ও কারিগরী দফতরের মন্ত্রী সুব্রত মুখার্জী বলেন, প্রায় ২৬ লক্ষ তীর্থ যাত্রী সমুদ্র স্নান সেরেছেন। এবার বেশি জোয়ার থাকায় নদী পথে যাত্রী পারাপার সুবিধা হচ্ছে। স্নান সেরে তীর্থ যাত্রীরা দ্রুত কলকাতার পথে ফিরে যাচ্ছেন। হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে একজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। মেলায় হারিয়ে গিয়ে এখন নিখোঁজ আছেন ৮৭ জন। কেপমারি ও চুরির ঘটনায় পুলিশ ৪০ জনকে গ্রেফতার করেছে। সংবাদ সন্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সাংসদচৌধুরী মোহন জতুযা,, মন্ত্রী অরুপ বিশ্বাস, শোভন দেব চট্টোপাধ্যায়, জেলা শাসক ওয়াই শৎশ।

Share on Facebook