১৮ হাজার শিক্ষক নিয়োগে আবেদন ২৪ লাখ

0
197

নিজস্ব প্রতিবেদক: সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সমূহে শিক্ষক নিয়োগের জন্য লিখিত পরীক্ষা নেয়া শুরু হয়েছে। কয়েকটি স্থানে প্রশ্নপত্র ফাঁসের চেষ্টা করা হলেও এই অসাধু চক্রের সদস্যদের গ্রেফতারসহ বিভিন্ন ব্যবস্থা নিয়েছে কর্তৃপক্ষ।
প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, চলতি পর্যায়ে আঠার হাজার শিক্ষক নিয়োগ করা হবে। চার ধাপে লিখিত পরীক্ষা হবে। প্রথম ধাপের পরীক্ষা ২৪শে মে অনুষ্ঠিত হয়েছে। আগামী এক মাসের মধ্যে পরবর্তী ধাপ সমূহের লিখিত পরীক্ষা হবে। আঠার হাজার প্রাথমিক শিক্ষক পদে নিয়োগের জন্য   আবেদন করেছে ২৪ লাখ ৩৭ হাজার জন। সারাদেশে পর্যায়ক্রমে মোট ৬৫ হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয়য়ের জন্য ৬২ হাজার শিক্ষক নিয়োগ করা হবে। আগামী আট মাস থেকে এক বছরের মধ্যে সমস্ত নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হবে। জানা যায়, আবেদনকারি ২৪ লাখ ৩৭ হাজার জনের মধ্যে আঠার লাখই অনার্স ও অনার্সসহ মাষ্টারস ও মাস্টার্রস ডিগ্রিধারী। প্রায় দুই লাখ আবেদনকারি ইন্টার মিডিয়েট পাশ। বাকীরা গ্র্যাজুয়েট। ইন্টারমিডিয়েট উত্তীর্ণদের শিক্ষক পদে নিয়োগের জন্য এটাই শেষ সুযোগ। শিক্ষক নিয়োগ নীতিমালায় পরিবর্তন আনার ফলে তারা ভবিষ্যতে আর সুযোগ পাবেননা। বিএ, বি.এস.সি, বি.কম. উত্তীর্ণ হতে হবে শিক্ষক নিয়োগের ন্যুনতম শিক্ষাগত যোগ্যতা। এবারে মোট আবেদনকারিদের মধ্যে প্রায় পনের লাখ মহিলা। এদের মধ্যে সাড়ে বার লাখই অনার্স ও অনার্সসহ মাষ্টারস ও মাস্টার্রস ডিগ্রিধারী। বাকরীরা ইন্টারমিডিয়েট উত্তীর্ণ ও গ্রাজুয়েট। পুরুষ আবেদনকারীদের মধ্যেও পঁচাশি শতাংশই অনার্সসহ মাস্টারস ও মাস্টারস ডিগ্রিধারী।
সরকার প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন কাঠামো সংশোধন করায় শুরুতেই একজন শিক্ষক মাসে আঠার হাজার টাকার বেশি বেতন পাবেন। ফেসটিবেল বোনাস, ঘরভাড়া, যাতায়াত ভাতাসহ আরো বেশি আর্থিক সুবিধা পাচ্ছেন। সামাজিকভাবে তারা মর্যাদাকর অবস্থায় রয়েছেন। এসব কারনে মহিলাদের আগ্রহ অনেক বেশি। শিক্ষকতা পেশায় সরকারিভাবেও মহিলাদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে। শিশু শিক্ষাদানে তারা অনেক বেশি আন্তরিক ও নিষ্ঠাবান হয়ে থাকেন।
সংশ্লিষ্টরা মনে করেন দেশে বেকার সমস্যা, বিশেষ করে শিক্ষিত বেকার সমস্যা যে কতটা ভয়াবহ আকারে বিদ্যমান প্রাথমিক শিক্ষক পদে বিপুল সংখ্যক শিক্ষিত যুবক-যুবতীদের আবেদনের ঘটনাই তার প্রমান করেন। এ ঘটনা দেশের জন্য ব্যাপক উদ্বেগজনক বলেই তারা মনে করেন।

Share on Facebook