ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলাকারী নিজেকে নির্দোষ দাবী করেছে

0
38

নিউজ ডেস্ক: নিজেকে নির্দোষ দাবী করেছে নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলাকারী।ব্রেন্টন হ্যারিসন টারান্টের বিরুদ্ধে আদালতে ৫১জন মানুষকে হত্যা, ৪০ জন মানুষকে হত্যার চেষ্টা এবং সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের একটি অভিযোগসহ মোট ৯২টি অভিযোগ আনা হয়েছে।সব অভিযোগ অস্বীকার করেছে টারান্ট। ক্রাইস্টচার্চ কারাগার থেকে ভিডিও লিঙ্কের মাধ্যমে হাইকোর্টে হাজিরা দেয় টারান্ট। গত ১৫ মার্চ জুমার নামাজের সময় দুটি মসজিদে প্রবেশ করে নির্বিচারে গুলি চালান অস্ট্রেলিয়ার নাগরিক ট্যারান্ট। ওই ঘটনায় নিহত হয় ৫১ জন। হামলার পুরো ঘটনা ফেসবুকে লাইভ করেছিলেন ট্যারান্ট। শান্তিপূর্ণ নিউজিল্যান্ডে এটাই প্রথম নির্বিচার হত্যাকাণ্ড। ২৯ বছর বয়সী ট্যারান্টের বিরুদ্ধে ৪০টি অভিযোগ আনা হয়েছে।
কী প্রতিক্রিয়া আদালত কক্ষে?
হামলা থেকে বেঁচে যাওয়াদের কয়েকজন এবং নিহতদের স্বজনেরা শুনানির সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন। গতকাল কারাগার থেকে ভিডিও লিংকের মাধ্যমে ট্যারান্টকে আদালতে হাজির করা হয়। শুনানির সময় ট্যারান্টের আইনজীবী শেইন টেইট তার মক্কেলকে নির্দোষ বলে দাবি করেন। এসময় আদালতকক্ষে ক্রাইস্টচার্চে নিহতদের স্বজন এবং আহতদের মধ্যে উপস্থিত অনেকে কান্নায় ভেঙে পড়েন। পরে হাইকোর্টের বিচারপতি ক্যামেরন ম্যান্দার জানান, আগামী বছরের ৪ মে এই মামলার বিচার শুরু হবে। এছাড়া ১৬ আগস্ট একটি মামলার রিভিউ শুনানি হওয়ার আগ পর্যন্ত ট্যারান্ট কারাগারে থাকবেন। এর আগে গত এপ্রিলে ট্যারান্টকে আদালতে হাজির করা হয়েছিল। ওই সময় বিচারের জন্য উপযুক্ত কিনা নির্ধারণের জন্য ট্যারান্টের মানসিক স্বাস্থ্য পরীক্ষার নির্দেশ দিয়েছিল আদালত। ট্যারান্টের স্বাস্থ্য পরীক্ষার পর তার সুস্থতার ব্যাপারে শুনানির প্রয়োজন নেই উল্লেখ করে গতকাল বিচাপতি ম্যান্দার  বলেছেন, ‘আসামির সুস্থতার পক্ষে ওজর, কৌঁসুলিকে নির্দেশনা এবং তার বিচারে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে কোনো ইস্যুর উদ্ভব হয়নি। তাই সুস্থতার বিষয়ে শুনানির প্রয়োজন নেই।’এর মধ্যে গত সপ্তাহে টারান্টের ছবি প্রকাশের ওপর যে নিষেধাজ্ঞা ছিল, তা প্রত্যাহার করে নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। হামলার পরই গ্রেপ্তার হন টারান্ট, এরপর ১৬ই মার্চ তাকে প্রথম আদালতে হাজির করা হয়। হামলার সময় মাথায় স্থাপন করা ক্যামেরা দিয়ে মসজিদে হামলার পুরো ঘটনা সরাসরি ইন্টারনেটে প্রচার করছিল ২৮ বছর বয়সী অস্ট্রেলিয়ার নাগরিক টারান্ট। ফুটেজে দেখা যায় সে দুটি মসজিদে নারী, পুরুষ ও শিশুদের ওপর হামলা চালাচ্ছে।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here