ভয়াবহ বিপর্যয়ের মুখে পশ্চিমবঙ্গের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা

0
49

নিউজ ডেস্ক : দিল্লির এইমসে সমস্ত পরিষেবা বন্ধের ঘোষণা ছিল আগে থেকেই। এনআরএস-এ জুনিয়র ডাক্তারদের আন্দোলনকে সমর্থন করতে সামিল হল ভারতের প্রায় সব রাজ্যের মেডিক্যাল কলেজগুলি। তার মধ্যেই ১৭ জুন সোমবার সারা দেশের হাসপাতালগুলিতে ধর্মঘটের ডাক দিল ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন (আইএমএ)। চিকিৎসকদের সর্বোচ্চ সংগঠনের তরফে জানানো হয়েছে, জরুরি ও রুটিন পরিষেবা চালু থাকবে। তবে আউটডোর এবং অন্যান্য পরিষেবা বন্ধ থাকবে। ফলে সোমবার সারা দেশেই চিকিৎসা পরিষেবায় ব্যাপক প্রভাব পড়তে চলেছে বলে খবর।
অন্য দিকে গতকালের কর্মবিরতিতে কার্যত সামিল হয়েছে গোটা দেশ। উত্তরপ্রদেশ, অন্ধ্রপ্রদেশ, তেলঙ্গানা, মহারাষ্ট্র, কেরল, পঞ্জাব, বিহার, অসম-সহ সব রাজ্যের মেডিক্যাল কলেজের চিকিৎসকরা নিরাপত্তার দাবিতে আন্দোলনে সামিল হয়েছেন। কোথাও কাজ বন্ধ রেখে আন্দোলন হয়েছে। কোথাও বা রাস্তায় নেমে প্রতিবা মিছিল করেছেন চিকিৎসকরা। ফলে এই সব হাসপাতালে আউটডোর এবং জরুরি পরিষেবা কার্যত বন্ধ। সব মিলিয়ে এনআরএস আন্দোলনের ঢেউ ছড়িয়ে পড়ছে সারা দেশেই।বৃহস্পতিবার দিল্লির অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট মেডিক্যাল সায়েন্সেস-এর চিকিৎসকরা হেলমেট পরে এবং মাথায় ব্যান্ডেজ বেঁধে প্রতীকী প্রতিবাদ করেছিলেন। তবে পরিষেবা সচল ছিল। ওই অবস্থাতেই সব বিভাগে চিকিৎসা করেছিলেন ডাক্তাররা। সেই সঙ্গে বৃহস্পতিবারই ঘোষণা করে দেওয়া হয়েছিল, গতকাল শুক্রবার হাসপাতালের সমস্ত পরিষেবা বন্ধ থাকবে। সারা দেশের সব মেডিক্যাল কলেজকেও এক দিনের এই প্রতীকী কর্মবিরতিতে সামিল হওয়ার আহ্বান জানিয়েছিল এইমস-এর রেসিডেন্ট ডক্টর?্স অ্যাসোসিয়েশন। সেই মতোই গতকাল এইমস-এর পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ আকার নেয়। কার্যত অবরুদ্ধ গোটা হাসপাতাল। আউটডোর, জরুরি পরিষেবা থেকে সমস্ত বিভাগে তালা ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। হাসপাতালের গেটের বাইরে প্রচুর মানুষ ভিড় জমালেও কেউ পরিষেবা পাননি। এনআরএস কাণ্ডের প্রতিবাদে এ দিন হাসপাতালের রেসিডেন্ট ডক্টর?্স অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে যন্তরমন্তরে একটি মিছিলও বের করা হয়। এ দিনের মিছিলেও চিকিৎসকদের মাথায় ছিল প্রতীকী ব্যান্ডেজ।দিল্লির পাশাপাশি আন্দোলন ছড়িয়েছে মহারাষ্ট্রেও। মহারাষ্ট্র অ্যাসোসিয়েশন অব রেসিডেন্ট ডক্টরস এক দিনের কর্মবিরতি পালন করছে। সরকারি হাসপাতালগুলির আউটডোর-সহ অধিকাংশ পরিষেবা কার্যত বন্ধ। শুধুমাত্র জরুরি পরিষেবা চালু রাখা হয়েছে বলে সংগঠনের দাবি। যদিও অনেকেরই অভিযোগ, অনেক হাসপাতালেই জরুরি পরিষেবাও মেলেনি। একটি বিবৃতিতে সংগঠনের নেতৃত্ব জানিয়েছেন, ‘‘সকাল আটটা থেকে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত আমরা আউটডোর, ওয়ার্ড এবং অ্যাকাডেমিক সার্ভিসেস বন্ধ রাখছি। তবে জরুরি পরিষেবায় এর কোনও প্রভাব পড়বে না।’’ প্রতিবাদ-বিক্ষোভ হয়েছে নাগপুরেও।উত্তরপ্রদেশের বড় মেডিক্যাল কলেজ তথা হাসপাতালগুলির মধ্যে অন্যতম বেনারস হিন্দু ইউনিভার্সিটির অধীন ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল সায়েন্সেস (আইএমএস)। এনআরএস-এর আন্দোলনে সমর্থন জানাতে এই মেডিক্যাল কলেজেও পরিষেবা বন্ধ করে কর্মবিরতিতে সামিল হয়েছেন চিকিৎসকরা। কিন্তু বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে প্রায় সব পরিষেবা। সংগঠনের রেসিডেন্টস অব আইএমএস (বিএইচইউ)-এর তরফে বিবৃতি দিয়ে জানানো হয়েছে, আউটডোর, ইন্ডোর এবং সাধারণ অস্ত্রোপচারের কাজকর্ম বন্ধ থাকবে। তবে জরুরি পরিষেবা এবং জরুরি অস্ত্রোপচার চালু থাকবে।কলকাতার আন্দোলনের রেশ ছড়িয়েছে দক্ষিণের দুই রাজ্য অন্ধ্রপ্রদেশ এবং তেলঙ্গানাতেও। অন্ধ্র মেডিক্যাল কলেজের পড়ুয়া এবং চিকিৎসকরাও এনআরএসের আন্দোলনকারীদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। তবে এখানে পরিষেবায় খুব বেশি প্রভাব পড়েনি। চিকিৎসকরা হাসপাতাল ক্যাম্পাসের মধ্যে একটি প্রতিবাদ মিছিল করেন। হাসপাতাল সুপারের দফতরের কাছে গিয়ে শেষ হয় সেই মিছিল। তেলঙ্গানার হায়দরাবাদে নিজাম ইনস্টিটিউট অব মেডিক্যাল সায়েন্সেস-এর চিকিৎসকরাও একটি প্রতিবাদ মিছিলে সামিল হন।এর বাইরে আরও বিভিন্ন রাজ্যেও প্রতিবাদ-বিক্ষোভ হয়েছে। ছত্তীসগঢ?ের রাইপুরে বি আর আম্বেডকর হাসাপাতালের চিকিৎসকরা পরিষেবা বন্ধ করে ক্যাম্পাসের ভিতরেই মাথায় প্রতীকী ব্যান্ডেজ বেঁধে জমায়েত করে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন। এছাড়াও কোথাও প্রতিবাদ মিছিল হয়েছে, কোথাও কালো ব্যাজ পরে পরিষেবা দিয়েছেন চিকিৎসকরা। কোথাও বা প্রতীকী প্রতিবাদ হিসেবে কিছুক্ষণের জন্য বন্ধ রাখা হয়েছে পরিষেবা। বিক্ষোভ-মিছিলও হয়েছে বিভিন্ন রাজ্যের একাধিক মেডিক্যাল কলেজে।্য
সরকারি ডাক্তারদের গণইস্তফার ঢেউ
শুরু হয়েছিল সাগর দত্ত মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল দিয়ে। তার পর থেকেই রাজ্য জুড়ে সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসকদের গণইস্তফা চলছে। নীলরতন সরকার মেডিক্যাল কলেজ (এনআরএস) তো বটেই, উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ, আরজি কর মেডিক্যাল কলেজ, এসএসকেএম, ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজের মতো একাধিক হাসপাতালে গণইস্তফা দিয়েছেন চিকিৎসকেরা।স্বাস্থ্য ভবন সূত্রে খবর, গতকাল দুপুর পর্যন্ত চার জন অধ্যক্ষ এবং ১৭০ জন চিকিৎসক ইস্তফা দিয়েছেন। নজিরবিহীন এই পরিস্থিতিতে গোটা রাজ্যের স্বাস্থ্য ব্যবস্থাটাই ভেঙে পড়ার আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। গোটা পরিস্থিতির জন্য রাজ্য প্রশাসন এবং মুখ্যমন্ত্রীকেই দায়ী করছে চিকিৎসক মহল। সরাসরি না বললেও ইস্তফার কারণ হিসেবে প্রশাসনিক অসহযোগিতাকেই কারণ হিসাবে দেখিয়েছেন চিকিৎসকরা। শুরুটা হয়েছিল এনআরএস মেডিক্যাল কলেজ থেকেই। মুখ্যমন্ত্রীর ‘হুঁশিয়ারি’র পর আরও কঠোর অবস্থান নিয়েছেন আন্দোলনকারী চিকিৎসকরা। বৃহস্পতিবারই ইস্তফা দিয়েছিলেন এনআরএসের প্রিন্সিপাল এবং সুপার। শুক্রবার ওই মেডিক্যাল কলেজের আরও প্রায় ১০০ জন চিকিৎসক ইস্তফা দিয়েছেন। গতকাল দুপুরে গণ ইস্তফার চিঠি স্বাস্থ্যভবনে পাঠিয়ে দিয়েছেন চিকিৎসকরা। বৃহস্পতিবারই গুঞ্জন ছড়িয়েছিল, শুধু সাগর দত্ত মেডিক্যাল কলেজে নয়, গোটা রাজ্যেই গণ ইস্তফা দেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন চিকিৎসকদের একটা বড় অংশ। পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে শুরু করেএ দিন সকাল থেকেই। বেলা বাড়তেই একে একে ইস্তফা দিতে শুরু করেন আরজি কর হাসপাতালের চিতিৎসকরা। দুপুর পর্যন্ত সংখ্যাটা দাঁড়িয়েছে ৯৭-এ। তাঁদের অধিকাংশেরই বক্তব্য, প্রশাসনিক অসহযোগিতার জেরে হাসপাতালে পরিষেবা দেওয়া কার্যত অসম্ভব। মানুষ হাসপাতালে আসছেন, অথচ পরিষেবা পাচ্ছেন না, এটা মেনে নিতে পারছেন না তাঁরা। সেই কারণেই ইস্তফা দিয়েছেন।বৃহস্পতিবার এসএসকেএম হাসপাতালে গিয়ে আন্দোলনরত চিকিৎসকদের ‘হুঁশিয়ারি’ দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। ৪ ঘণ্টার মধ্যে কাজে যোগ না দিলে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আন্দোলনকারীদের হস্টেল ছাড়তে হবে বলেও হুমকি দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। মুখ্যমন্ত্রী হাসপাতাল ছাড়ার পর কার্যত জোর করে জরুরি পরিষেবা চালুর চেষ্টা হয়েছিল। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রীর হুমকি এবং প্রশাসনিক এই ব্যবস্থার জেরে ক্ষুব্ধ হয়ে আরও কঠোর অবস্থান নেন আন্দোলনকারীরা। এ বার সেই এসএসকেএম হাসপাতালেও গণইস্তফা দিচ্ছেন চিকিৎসকেরা। ইতিমধ্যেই মেডিসিন বিভাগের ৮ জন পদত্যাগ করেছেন।দক্ষিণ ছাড়িয়ে আন্দোলনের ঢেউ আছড়ে পড়েছে উত্তরবঙ্গেও। শিলিগুড়িতে উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসকরা এ দিন পথে নেমে প্রতিবাদ মিছিল করেন। সেই মিছিল শেষ হওয়ার পরই পদত্যাগ করেন মনোরোগ বিভাগের প্রধান নির্মল বেরা। পরে ওই বিভাগের আরও ৫ জন চিকিৎসকও ইস্তফা দিয়েছেন। সব মিলিয়ে উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল থেকে পদত্যাগ করেছেন মোট ৮ জন চিকিৎসক। পদত্যাগের পর তাঁরা জানিয়েছেন, পরিস্থিতি কার্যত নিয়ন্ত্রণের বাইরে। প্রশাসনিক অসহযোগিতার জেরে এ ছাড়া আর কোনও উপায় ছিল না। এই পরিস্থিতির মধ্যে  গোটা রাজ্যেই  চিকিৎসা পরিষেবা এক ভয়াবহ বিপর্যয়ের সম্মুখীন। মুমূর্ষ রোগী নিয়ে গেলেও ভর্তি করা হয়নি। মেলেনি প্রাথমিক চিকিৎসার মতো পরিষেবাও এমন অভিযোগ রাজ্যের প্রায় সর্বত্র। আর জি কর, মেডিক্যাল কলেজে দেখা গিয়েছে হাসপাতালে এসেও রোগীকে ফিরিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন পরিবারের লোকজন।রোগী নিয়ে এক হাসপাতাল থেকে অন্য হাসপাতালে ঘুরে বেড়ানোর ছবি রাজ্যের সর্বত্র। ফলে সব মিলিয়ে রাজ্যের স্বাস্থ্য ব্যবস্থাই কার্যত খাদের কিনারায় দাঁড়িয়ে। অবিলম্বে পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে গোটা ব্যবস্থাই ভেঙে পড়বে বলে মনে করছেন চিকিৎসক মহলের একটা বড় অংশ।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here