বায়তুল মোকাররমে এরশাদের জানাজায় জনস্রোত

0
20

নিজস্ব প্রতিবেদক : বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের তৃতীয় জানাজায় সর্বস্তরের জনতার ঢল নেমেছে। গতকাল সোমবার বাদ আসর তার জানাজা পড়ান বায়তুল মোকাররম মসজিদের খতিব। জানাজায় উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জি এম কাদের, মসিউর রহমান রাঙ্গা, রুহুল আমিন হাওলাদার, ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ প্রমুখ। জানাজার আগে দলের মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা এরশাদের জীবনী তুলে ধরেন। দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জিএম কাদের বলেন, বাংলাদেশের মানুষের জন্য তার বিপুল অবদান। ইসলামের জন্য তিনি অনেক কাজ করেছেন। মানুষ হিসেবে কথা ও কাজে ভুলত্রুটি থাকতে পারে। আমি এরশাদের ভাই হিসেবে ক্ষমা চাই। দোয়া চাই। তাকে সবাই ক্ষমা করে দেবেন। তাকে যেন আল্লাহ জান্নাতুল ফেরদৌস দান করেন। এর আগে বিকেল ৫টায় সাবেক রাষ্ট্রপতির মরদেহ ফ্রিজার ভ্যানে বায়তুল মোকাররম মসজিদে আনা হয়। এদিকে জানাজায় অংশ নিতে আসরের নামাজের এক ঘণ্টা আগে থেকে এরশাদের অসংখ্য ভক্ত, নেতাকর্মী ও রাজনৈতিক ব্যক্তি মসজিদে ভিড় করেন। জাতীয় মসজিদ কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায়। এর আগে দুপুর ১২টায় এরশাদের মরদেহ কাকরাইলে জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আনা হয়। সেখানে নেতাকর্মীসহ সর্বসাধারণ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এরশাদের মরদেহ দেখতে সকাল থেকেই অসংখ্য ভক্ত, নেতাকর্মী ও রাজনৈতিক ব্যক্তি সেখানে উপস্থিত ছিলেন। গতকাল সোমবার সকাল সোয়া ১০টার দিকে জাতীয় সংসদের দক্ষিণ প্লাজায় দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয় রোববার বাদ জোহর ঢাকা সেনানিবাস কেন্দ্রীয় মসজিদে। জাতীয় সংসদ ভবন প্রাঙ্গণে সোমবার সকালে বিরোধী দলীয় নেতা জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের দ্বিতীয় জানাজায় অংশ নেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। পাঁচবারের এই এমপির কফিন জাতীয় পতাকা ও সেনাবাহিনীর পতাকায় মুড়ে সোমবার সকালে জাতীয় সংসদ প্রাঙ্গণে নিয়ে আসা হয় রেওয়াজ অনুযায়ী আরেক দফা জানাজার জন্য। তবে বৈরী আবহাওয়ার কারণে সংসদের দক্ষিণ প্লাজার বদলে জানাজার আনুষ্ঠানিকতা সারা হয় দক্ষিণ প্লাজার নিচের টানেলে।জানাজার পরে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদের কফিনে। প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে তার সামরিক সচিব, স্পিকারের পক্ষে সার্জেন্ট অ্যাট আর্মস এবং ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়া শ্রদ্ধা নিবেদন করেন বিরোধী দলীয় নেতার কফিনে।জানাজার আগে এখানেও এরশাদের জীবনী পড়ে শোনান জাতীয় পার্টির মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গাঁ। বক্তব্য দিতে এসে আবেগ আপ্লুত গয়ে পড়েন এরশাদের ভাই জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জিএম কাদের। এরশাদের স্ত্রী সাবেক বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ জানাজায় এসেছিলেন ছেলে শাদ এরশাদকে সঙ্গে নিয়ে। সবার কাছে এরশাদের জন্য দোয়া চান রওশন। রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ, ডেপুটি স্পিকার শেখ ফজলে রাব্বী মিয়া, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল, কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক, তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ, বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন, সংসদের প্রধান হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী সেখানে জানাজায় অংশ নেন। বিরোধী দলীয় নেতা জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের দ্বিতীয় জানাজায় অংশ নিতে জাতীয় সংসদ প্রাঙ্গণে তার ভাই জিএম কাদেরসহ দলের অন্য নেতারা।আওয়ামী লীগ নেতাদের মধ্যে তোফায়েল আহমেদ, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, মাহবুব-উল আলম হানিফ, মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন এবং বিএনপি নেতা ব্যরিস্টার মওদুদ আহমদ ও জিএম সিরাজ যোগ দেন জানাজায়। জাতীয় পার্টির নেতাদের মধ্যে রুহুল আমিন হাওলাদার, কাজী ফিরোজ রশীদ, আবু হোসেন বাবলা, মুজিবুল হক চুন্নু, আনিসুল ইসলাম মাহমুদ জানাজায় অংশ নেন। বিমান বাহিনীর হেলিকপ্টারে করে সাবেক এই রাষ্ট্রপতির মরদেহ মঙ্গলবার সকালে নেওয়া হবে তার নির্বাচনী এলাকা রংপুরে। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টায় জেলা শহরের ঈদগাহ মাঠে ‘পেয়ারা’ নামে পরিচিত রংপুরের সন্তান এরশাদের চতুর্থ জানাজা হবে। ঢাকার ফিরিয়ে আনার পর দুপুরে বনানীর সেনা কবরস্থানে দাফন করার কথা রয়েছে বাংলাদেশের এই চতুর্থ সেনাপ্রধানের মরদেহ।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here