আগামীকাল পবিত্র ঈদুল আজহা

0
14

নিজস্ব প্রতিবেদক : আগামীকাল সোমবার সারাদেশে পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত হবে। জিলহজ মাসের ১০ তারিখে ঈদুল আজহা উদযাপিত হয়। সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে আজ কোরবানির ঈদ উদযাপিত হবে।
এই ধর্মীয় উৎসবে পশু কোরবানি দেয়া হয়, যার মধ্য দিয়ে নিজের ভেতরের কলুষতাকে বর্জন এবং সৃষ্টিকর্তার সন্তুষ্টি লাভই ইসলামের শিক্ষা। অর্থনৈতিক বৈষম্য যেমন দূর হয়, তেমনি সামাজিক দায়বদ্ধতা প্রকাশ পায়। অন্যদিকে ঈদগাহে ধনী-গরিব নির্বিশেষে এক কাতারে নামাজ আদায় শেষে কোলাকুলির মাধ্যমে স্থাপিত হয় মহান এক সামাজিক বন্ধন। আমাদের জীবন চলার সব ক্ষেত্রে সীমা লঙ্ঘনের নেতিবাচক প্রবণতা থেকে রক্ষা করবে। অন্যায়, অবিচার, ঘৃণা, বিদ্বেষ, হিংসা, হানাহানি মানুষের সব নেতিবাচক প্রবণতার রশি টেনে ধরবে। ঈদ যে আনন্দের বার্তা বয়ে এনেছে, তার মর্মমূলে আছে শান্তি ও আনন্দঘন ভালোবাসা। ঈদ আমাদের সামষ্টিক জীবনে যে মিলন ও শুভবোধের চর্চার দৃষ্টান্ত স্থাপন করে, তা সঞ্চারিত হোক সবার প্রতিদিনের জীবনযাপনে। নিছক আনুষ্ঠানিকতা নয়, ঈদ হোক জীবনকে নবায়ন করার আহŸান।
ঈদ উৎসব উদযাপনের জন্য বিপুলসংখ্যক কর্মজীবী মানুষ রাজধানী ঢাকা ও অন্যান্য বড় শহর থেকে পরিবার-পরিজনসহ গ্রামের বাড়ি যাচ্ছেন। কিন্তু যানবাহনের অপ্রতুলতার কারণে প্রতি বছরই ঘরমুখো মানুষের বেশ ভোগান্তি হয়। ঈদ উপলক্ষে বিশেষ ট্রেন ও বাড়তি বগি সংযোজন করার পরও অনেক মানুষকে ট্রেনের ছাদে চড়ে বাড়ি ফিরতে দেখা যায়। বাস ও লঞ্চের যাত্রীদের টিকেটের জন্য হাহাকার চলে। ভোগান্তি কিছুটা লাঘব হতে পারে টিকেট কেনাবেচা ও যাত্রী পরিবহনের ক্ষেত্রে শৃঙ্খলা ও ব্যবস্থাপনা উন্নত করার মাধ্যমে। সড়ক-মহাসড়কে যানজট ও দুর্ঘটনার ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সতর্কতা খুব জরুরি। দুর্ঘটনাকবলিত যানবাহন দ্রæত সড়ক থেকে সরিয়ে নেয়া না হলে যে যানজট বেধে যায়, তা অত্যন্ত জটিল ও দুর্ভোগময় পরিস্থিতি সৃষ্টি করে। সড়কপথ, রেলপথ এবং নৌপথে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের ঈদের আগে ও পরে বাড়তি নজরদারি দরকার। ঈদের আনন্দকে বাড়িয়ে দিতে আমাদের দেশে আয়োজনের কমতি নেই। পত্রিকাগুলো প্রকাশ করে থাকে বর্ধিত কলেবরের ঈদ সংখ্যা। এই আয়োজন ঈদের সব আনন্দর সঙ্গে বাড়তি আনন্দ যোগ করবে । সবাই সুন্দর ও সুস্থভাবে ঈদের আনন্দ উপভোগ করুন এটাই প্রত্যাশা। ঈদ মোবারক।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here