পথের ভোগান্তি মিলিয়ে যায় ঘরে ফেরার আনন্দে

0
18

নিউজ ডেস্ক : ঈদ যত ঘনিয়ে আসছে, বাড়ির উদ্দেশে যাত্রাপথে মানুষের ভোগান্তি ততটাই বাড়ছে। সড়ক, রেল ও নৌপথ সবক্ষেত্রেই সমান ভোগান্তি মানুষের। কিন্তু তারপরও বাড়ির পথে যাত্রা থেমে নেই। পরিবারের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে শত ভোগান্তিও মেনে নিচ্ছেন সবাই। যেন পথের ভোগান্তি ঘরে ফেরার আনন্দে মিলিয়ে যায়।
গতকাল কমলাপুর রেলস্টেশনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা ট্রেনের জন্য অপেক্ষা করছেন মানুষ। অনেকে শুক্রবার থেকে ট্রেনের জন্য অপেক্ষা করলেও এখন পর্যন্ত ট্রেনের দেখা মেলেনি। আর এ নিয়ে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে মানুষের মনে।
এর মধ্যে ‘পদ্মা এক্সপ্রেস’ টেনটি শুক্রবার রাত ১১টা ১০ মিনিটে ছেড়ে যাওয়ার কথা থাকলেও শনিবার সকাল ৮টা ৫০ মিনিটে ট্রেনটির ছেড়ে যাওয়ার সময় নির্ধারণ করা হয়। অন্যদিকে খুলনাগামী ‘সুন্দরবন এক্সপ্রেস’ ট্রেনটি সকাল ৬টা ২০ মিনিটে ছেড়ে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ট্রেনটির ছেড়ে যাওয়ার সম্ভাব্য সময় নির্ধারণ করা হয় ১২টা ২০ মিনিটে। এর মধ্যে শুক্রবার রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন কমলাপুর রেলস্টেশনে এসে যাত্রীদের দুর্ভোগের জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন। এদিকে, মহাখালী বাস টার্মিনালে শুক্রবার রাত থেকেই মানুষ অপেক্ষা করলেও ঠিক সময়ে বাস ছেড়ে যাচ্ছে না। কোনো বাস ১০ ঘণ্টা, আবার কোনোটি ১২ ঘণ্টা দেরিতে ছাড়ছে।
এর আগে যে গাড়িগুলো ঈদযাত্রায় ছেড়ে গেছে, সেগুলো ঠিক সময়ে ফিরে না আসায় এ দুর্ভোগ হচ্ছে বলে জানিয়েছে কাউন্টার কর্তৃপক্ষ। এদিকে যাত্রীদের অভিযোগ, যাঁরা আগে থেকে টিকেট কেটে রাখেননি, তাঁদের কাছ থেকে বেশি মূল্যে টিকেট বিক্রি করা হচ্ছে। এদিকে সদরঘাট লঞ্চ টার্মিলানে লঞ্চগুলোতে মানুষ ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসে থাকলেও লঞ্চ ছেড়ে যাচ্ছে না। স্বাভাবিকের চেয়েও অনেক মানুষের ভিড় দেখা যাচ্ছে লঞ্চগুলোতে। কিন্তু এরপরও পাঁচ থেকে ছয় ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও লঞ্চগুলো ছাড়া হচ্ছে না। ফলে দুর্ভোগে পড়ছে মানুষ।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here