১৪ দলে চাপা অসন্তোষ

0
124

নিজস্ব প্রতিবেদক : ক্ষমতার অংশীদারিত্ব হারিয়ে ১৪ দলের শরিকদের মধ্যে হতাশা, অসন্তোষ দানা বেঁধে উঠছে। তার কিছু বহি:প্রকাশও ঘটছে। তবে ক্ষমতা হারানোর বেদনা থেকে না রাজনৈতিক আদর্শগত অবস্থান থেকে হতাশা, অসন্তোষ জমে উঠছে তা স্পষ্ট নয়। সংশ্লিষ্ট শরিক দলের নেতারা বলছেন যে, রাজনৈতিক বিশ্বাস, অবস্থান থেকে তারা জনগনের পক্ষে কথা বলছেন। তাদের সরকারে থাকা না থাকা এক্ষেত্রে বড় বিষয় নয়। হতাশ, দ্ব›দ্ব থাকলেও দেশের বৃহত্তর স্বার্থ চিন্তায় তারা ১৪ দলেই আছেন, থাকবেন। ওয়ার্কাস পাটি, জাসদ (ইনু), গণতন্ত্রী পার্টির কয়েকজন নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে উপরোক্ত প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন।
জানা যায়, ১৪ দলের সর্বশেষ বৈঠকে জনজীবনের দুর্ভোগসহ জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়ে দ্রæত কার্যকর পদক্ষেপ নিতে ব্যর্থতায় সরকারের সমালোচনা করা হয়। বাজেট ঘোষণার পর দ্রব্যমূল্যের অস্বাভাবিক মুল্যবৃদ্ধি এবং তা নিয়ন্ত্রণে সরকারের ব্যর্থতা, ধানের ও চামড়ার মূল্য না পাওয়া, গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি, মাদ্রাসা ছাত্রী হত্যা, আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতিসহ জনজীবনের দুর্ভোগ লাঘবে কার্যকর ব্যবস্থা না নেয়ায় অসন্তোষ প্রকাশ করা হয়। ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন, জাসদ (ইনু) সভাপতি হাসানুল হক ইনুসহ আরো কয়েকটি শরিক দলের শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দ দ্রব্যমূল্য, গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি, সন্ত্রাস, হত্যাকান্ড, পুলিশের বাড়াবাড়ির সমালোচনা করেন। বিএনপি, জামায়াত, সাম্প্রদায়িক শক্তির নব-উত্থান আশঙ্কা প্রকাশ করে ১৪ দলীয় জোটকে অধিকতর শক্তিশালী ও ঐক্যবদ্ধ করার উপর গুরুত্ব দেন।
এ’দিকে এডিস মশার উপদ্রব থেকে মানুষকে রক্ষা করতে সিটি কর্পোরেশনগুলোর ব্যবস্থা নিতে ব্যর্থতা, ঈদে মানুষদের নিরাপদে বাড়ি যাওয়া ও ফিরে আসার নিশ্চয়তা বিধান করতে না পারা, মানুষের দুর্ভোগ, কোরবানীর পশুর চামড়ার মূল্য না পাওয়া নিয়ে জনমনে অসন্তোষ দানা বেঁধে উঠেছে উল্লেখ করে দ্রæত পদক্ষেপ নেয়ার জন্য শরিকরা ক্ষমতাসীন দলের শীর্ষস্থানীয় নেতাদের প্রতি আহŸান জানিয়েছেন। দলীয় অবস্থান থেকে শরিক দলের নেতারা প্রকাশ্য প্রতিক্রিয়াও ব্যক্ত করছেন।
সরকার দলীয় নেতাদের অনেকেই মনে করেন ক্ষমতার অংশিদারিত্ব হারানোর বেদনা থেকেই কোন কোন শরিক ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করছে। শরিকরা মনে করেন ব্যাপারটা আদৌ সেরকম নয়। জনগনের পক্ষে তাদেরই হয়ে তারা কথা বলছেন। সরকারের ভুল ত্রæুটি দেখিয়ে দেয়া এবং জনগনের দুর্ভোগ লাঘবে সরকারকে পরামর্শ দেয়া তাদের দায়িত্ব। বাম দলগুলোর পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক বৈঠকে ও অনানুষ্ঠানিক আলোচনায় উদ্বেগ প্রকাশ করা হয় যে, বিদ্যমান অবস্থার অবসানে দ্রæত কার্যকর ব্যবস্থা নেয়া না হলে ডান-সাম্প্রদায়িক শক্তি এর সুযোগ নেবে। ক্ষমতাসীন দলের শীর্ষ নেতারা বাম দলগুলোর বক্তব্য, প্রতিক্রিয়াকে হাল্কা করে না নিয়ে সরকারকে দ্রæত যথাযথ পদক্ষেপ নেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন বলে জানা যায়।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here