প্রাইভেট কোচিং বন্ধ হচ্ছেনা

0
139

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রাইভেট কোচিং বন্ধ হয়নি। চলছে শিক্ষা বাণিজ্য। এতদিন চলেছে প্রকাশ্যে, সম্প্রতি কিছুটা রাখডাক করে চলছে। হাইকোর্টের নির্দেশের পর কয়েকদিন মন্ত্রণালয় ও আইন শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর তৎপরতা ছিল। এখন তাও থেমে গেছে।
শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, সরকার অর্থদন্ড, কারাদন্ড, চাকুরিচ্যুতির বিধান করতে যাচ্ছে। সরকারি-বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের প্রাইভেট পড়ানো, কোচিং শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে গণ্য করা হবে। কোন শিক্ষক বিধান লঙ্ঘন করলে তাকে ২ লক্ষ টাকার অর্থদন্ড, জেল, চাকুরি হারানোর ঝুঁকি নিতে হবে।
জানা যায়, সরকারের গত মেয়াদে শিক্ষার নামে ব্যাপক বাণিজ্য শুরু হয়। শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে বিষয়টি গুরুত্বের সাথে নেয়া হয়নি। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ই এখন কঠোর আইনগত ব্যবস্থা করছে। সমাজের বিভিন্ন পর্যায়ের চাপের মুখে দুর্নীতি দমন কমিশন প্রাইভেট পড়ানো, কোচিং বাণিজ্য বন্ধ করতে সম্প্রতি কিছু ব্যবস্থা নিয়েছে। আইন শৃঙ্খলা বাহিনী কয়েকটি অভিযান চালিয়েছে। মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তর থেকে সতর্কীকরণমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়। সংশ্লিষ্ট শিক্ষকদের চিহ্নিত করে বদলিসহ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা তেমন একটা নেয়া হয়নি বলেই একশ্রেণীর শিক্ষক এই অসাধু কাজে উৎসাহিত হয়েছেন। বেসরকারি শিক্ষকরা প্রাইভেট কোচিং করলে শিক্ষক নিবন্ধন ও এমপিও বাতিল করার বিধান করার কথা বলা হলেও কর্তৃপক্ষ এগুচ্ছেন ধীর গতিতে।
চাপের মুখে সরকার কঠোর অবস্থান নেয়ার কথা বললেও বাস্তব অবস্থা তা নয়। গোপনে অনেক জায়গায় আগের মতো প্রকাশ্যেই কোচিং অব্যাহত রয়েছে। শিক্ষকদের বাণিজ্যিক মানসিকতার পাশাপাশি অভিভাবকদের মধ্যে প্রাইভেট পড়ানো, কোচিংয়ের প্রতি আগ্রহ বেশি। কিন্ডারগার্টেনসহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অভিভাবকদের মধ্যে এ প্রবণতা বেশি। যারফলে প্রাথমিক থেকে উচ্চতর পর্যায়েও প্রাইভেট কোচিং বন্ধ করা সহজ হচ্ছেনা। অভিজাত কি মধ্যবিত্ত সকলের মধ্যেই এই মানসিকতা রয়েছে।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here