বিমান বন্দরের জন্য ভারত আখাউড়ায় ৭০ একর ভ‚মি চেয়েছে

0
35

নিজস্ব প্রতিবেদক: স্বাধীনতার পর থেকেই নিকট প্রতিবেশি ভারত বাংলাদেশের আকাশসীমা ব্যবহার করে আসছে। রেলস্থল-নৌপথে বাংলাদেশ ভারতকে তার প্রয়োজন মাফিক ট্রানজিট, ট্রানশিপমেন্ট সুবিধা দিয়ে আসছে। নিকটতম প্রতিবেশি হিসেবে প্রকৃতিগত, ভৌগলিক সমস্যা বিবেচনায় বাংলাদেশ বরাবরই বন্ধুসুলভ আচরণ করে আসছে। বিনিময়ে অপরিহার্য জরুরি প্রয়োজনীয় সহযোগিতা বাংলাদেশ অনেক ক্ষেত্রে পায়নি। এখন ভারত বাংলাদেশের আখাউড়া সীমান্তের ৭০ একর ভূমি দীর্ঘমেয়াদে লিজ চাচ্ছে।
জানা যায়, আখাউড়া, চাঁনপুর সীমান্ত থেকে এক কিলোমিটারেরও কম দূরত্বে ভারতের আগরতলা বিমান বন্দর। এই বিমান বন্দরের নাম বদলে একে আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে পরিণত করতে চায় নয়াদিল্লী। এর নতুন নামকরণ করা হয়েছে মহারাজা বীর বিক্রমের নামানুসারে। সুপরিসর ক্র্যাফট উঠানামার উপযোগী করতে প্রশস্ত দীর্ঘ রানওয়ে , অবকাঠামো নির্মাণ কাজসহ প্রয়োজনীয় কাজের জন্য বাংলাদেশের আখাউড়ার চাঁনপুর থেকে সীমান্ত পর্যন্ত ৭০ একর জমি চায় ভারত। ২০১৮ সাল থেকেই ভারত এ ব্যাপারে বাংলাদেশের কাছে অনুরোধ জানিয়ে আসছে। ত্রিপুরার সাবেক মুখ্যমন্ত্রীও এ ব্যাপারে বাংলাদেশের সহায়তা চান। তবে ভারত থেকে আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব পায়নি বাংলাদেশ। ক‚টনৈতিক সূত্রে জানা যায়, ভারতের অনুরোধ বাংলাদেশ সরাসরি প্রত্যাখান না করে বিষয়টি পরীক্ষা করে দেখার কথা বলে আসছে। ফ্রান্স, সুইজারল্যান্ডসহ কোন কোন দেশে পারস্পরিক স্বার্থে আন্ত: সীমান্ত বন্দর রয়েছে। পারস্পরিক সমঝোতায় এর ব্যবস্থাপনা ও পরিচালনা সংশ্লিষ্ট দেশগুলো করে থাকে।
জানা যায়, ভারতীয় ভ‚খন্ডে পর্যাপ্ত ভ‚মি থাকার পরও ভারত বাংলাদেশ ভ‚খন্ড পর্যন্ত বিমান বন্দর সম্প্রাসরণ করতে চায় কেন সেটি সংশ্লিষ্টদের কাছে প্রশ্ন হয়ে আছে। তারচেয়ে বড় বিষয় হচ্ছে নিরাপত্তা, স্বর্ণ, মাদক, মানবপাচার, জঙ্গি, ধর্মীয় উগ্রবাদীদের চলাচলের সুবিধা হয় কিনা নিরাপত্তা বিশ্লেষকদের কাছে তাও প্রশ্ন হয়ে আছে। দুই দেশের স্বার্থেই নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা নিরাপত্তার দিকটি সর্বোচ্চ গুরুত্বের সাথে দেখছেন। সরকারও বিষয়টি বিশেষ গুরুত্বের সাথে দেখছে।
জানা যায়, স্বারাষ্ট্রমন্ত্রীর সাম্প্রতিক ভারত সফর কালে বিষয়টি তোলা হয়। নিরাপত্তার দিকটি ভারতের দিক থেকেও গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে। দু’দেশের নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞদের পরামর্শমত কর্মপন্থা স্থির করার উপর গুরুত্ব দেয়া হয়।
জানা যায়, আখাউড়া সীমান্তে ভারত বাংলাদেশের ভ‚মি দীর্ঘমেয়াদে লিজ নিতে চায়। বাংলাদেশ লিজ না দিয়ে ভ‚মির সার্বভৌম অধিকার বাংলাদেশের কাছেই রাখতে আগ্রহী তবে ভারতের স্বার্থে ভ‚মি ব্যবহার করতে দিতে অনাগ্রহী নয়। সেক্ষেত্রে কি ধরনের ব্যবস্থা নেয়া যায় তা নিয়ে চিন্তা করা হচ্ছে। বিমান বন্দর ও তার বাইরে আশেপাশের এলাকার নিরাপত্তা কিভাবে সুনিশ্চিত করা যায় তা নিয়েই দুপক্ষই চিন্তা ভাবনা করছে। ফ্রান্স-সুইজারল্যান্ডসহ অন্য কয়েকটি দেশে আন্ত:সীমান্ত বিমান বন্দর, তার নিরাপত্তা ব্যবস্থা কিভাবে পরিচালিত হচ্ছে তা সরেজমিনে পরীক্ষা করে দেখা হবে।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here