৩ হাজার ৩৩২ কোটি টাকার প্রকল্প : ১০ লাখ শিশু শিক্ষার্থীকে কারিগরি শিক্ষা দেয়া হবে

0
1505

নিজস্ব প্রতিবেদক :  ঝরেপড়া শিশু শিক্ষার্থীদের স্কুলমুখী করার পাশাপাশি কারিগরি শিক্ষা দেয়া হবে। পর্যায়ক্রমে ১০ লাখ শিশুকে এই কর্মসূচির আওতায় আনা হবে। প্রথম পর্যায়ে চলতি বছর ১ লাখ শিশুকে স্কুলে আনা হবে। পরবর্তী তিন বচরের মধ্যে অবশিষ্ট নয় লাখ শিশুকে প্রাথমিক শিক্ষা ও কারিগরি শিক্ষা দেয়া হবে।
প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, বিদ্যমান প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একটি শ্রেণীকে এজন্য বেছে নেয়া হবে। প্রাথমিক স্কুলের শিক্ষা কার্যক্রম যাত ব্যাহত না হয় সেদিকে খেয়াল রেখেই ঝরেপড়া শিশুদের প্রাথমিক ও কারিগরি শিক্ষা দেয়া হবে। ন্যুনতম এসএসসি পাস একজনকে শিক্ষক নিয়োগ করা হবে। কারিগরি বিভিন্ন বিষয়ে তাকে প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। কম্পিউটার, ইলেকট্রিক্যাল, ইলেকট্রিক্স, গাড়ি মেরামতসহ মেকানিক্যাাল বিষয়ে হাতে কলমে শিক্ষা দেয়া হবে। চারটি মডালিটির ভিত্তিতে সারাদেশে ৩ হাজার ৩৩২টি শিখনকেন্দ্র চালু করা হবে। ঢাকাসহ সবকটি মহানগর জেলা ও উপজেলা সদরে, পৌরসভা এলাকায় শিখন কেনদ্্র চালু করা হবে। পঁচিশ থেকে ত্রিশজন শিক্ষার্থী নিয়ে শ্রেণীকক্ষ হবে। প্রত্যেক শিক্ষার্থীর বয়স হবে আট থেকে চৌদ্দ।
জানা যায়, এ কর্মসূচি বাস্তবায়নে মোট ব্যয় হবে ৩ হাজার ২৬০ কোটি টাকা। সরঞ্জামাদি কেনার জন্য ব্যয় হবে দেড়শ কোটি টাকা। ঝরেপড়া শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয়মুখী করে তাদের প্রাথমিক শিক্ষার পাশাপাশি উপার্জন করার উপযোগী বিষয়ে কারিগরি শিক্ষা দেয়ার উদ্দেশ্য তাদের আয়ের একটা পথ করে দেয়া। এক্ষেত্রে মোটর মেকানিক, কম্পিউটার শিক্ষাকে অগ্রাধিকার দেয়া হবে। শিক্ষার্থীদের আগ্রহকে প্রাধান্য দেয়া হবে। তাদের জন্য গাইডলাইন, কারিকুলাম, মডিউল, ম্যানুয়েল তৈরি করা হচ্ছে।

Share on Facebook