বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার দ্বি-পাক্ষিক চুক্তিতে স্বার্থ বিরোধী কিছু নেই : জিএম কাদের

0
160

নিজস্ব প্রতিবেদক : জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও বিরোধী দলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ কাদের বলেছেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সম্প্রতি ভারত সফর ও সেখানে সম্পাদিত দ্বি-পাক্ষিক চুক্তি সম্পর্কে কিছু বিরূপ আলোচনা চোখে পড়েছে। এই বিষয়ে যৌথ বিবৃতি ও উল্লেখিত চুক্তি সমূহের তালিকা দেখেছি। সেখানে দেশের স্বার্থ বিরোধী কিছু চোখে পড়েনি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দেশপ্রেমের প্রতি আমরা আস্থাশীল। গতকাল রোববার বেলা ১১টায় জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের বনানী অফিসে জাতীয় পার্টি সাংগঠনিক টিমের যৌথ সভায় সভাপতির বক্তব্যে গোলাম মোহাম্মদ কাদের এ কথা বলেন।
সভাপতির বক্তব্যে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান আরো বলেন, বুয়েট ছাত্র আবরার হত্যাকান্ডে আমরা তীব্র নিন্দা জানিয়েছি। হত্যাকারীদের গ্রেফতার করা হয়েছে। এই হত্যাকান্ডের বিচার যেন সঠিকভাবে সম্পন্ন হয় ও দোষী ব্যাক্তিরা যেনো দৃষ্টান্তমূলক শান্তি পায়Ñ আমরা সেটাই চাই। আমরা প্রত্যাশা করি এ ধরণের ঘটনার যেন পুনরাবৃত্তি না হয়।
তিনি আরো বলেন, দেশে এখন দূর্নীতি বিরোধী শুদ্ধি অভিযান চলছে। আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এই সাহসী পদক্ষেপকে অভিনন্দন জানাই। তিনি নিজ দলের মানুষকেও ছাড় দেন নাই। আমরা আশা করি এই অভিযান অব্যাহত থাকবে। আওয়ামী লীগ এ বিষয়ে তাদের নির্বাচনী ইশতেহারে বর্ণিত অঙ্গীকার বাস্তবায়ন করবে।
জিএম কাদের বলেন, দেশে রাজনৈতিক শূন্যতা আছে। সামাজিক অস্থিরতা বিরাজ করছে। রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যেও অস্থিরতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এ প্রেক্ষিত্রে আমরা সুশৃঙ্খলভাবে রাজনৈতিক কর্মসূচী নিয়ে এগিয়ে যেতে চাই। যাতে করে শক্তিশালী সংগঠনের মাধ্যমে জন প্রত্যাশিত রাজনীতি দিয়ে আমরা অধিকতর জনসমর্থন ও আস্থা লাভ করতে পারি।
এসময় জাতীয় পার্টির মহাসচিব ও বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গা এমপি বলেন, জাতীয় নির্বাচনের বাকি আরো চার বছর। এর মধ্যেই আগামী নির্বাচনের জন্য আমাদের সংসদীয় আসনগুলোতে লক্ষ্য রেখে পরিকল্পিতভাবে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে হবে। জনপ্রিয় প্রার্থী নির্বাচন করে এখন থেকেই আমরা সভা-সমাবেশ করে পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের আদর্শ ও কর্মসূচিগুলো সাধারন মানুষের সামনে তুলে ধরবো। সম্মিলিতভাবে ঐ আসনগুলোতে জাতীয় পার্টি ও অঙ্গ-সংগঠনগুলো আরো শক্তিশালী করতে হবে। তিনি বলেন, দেশের আগামী দিনের রাজনীতিতে জাতীয় পার্টি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।
এসময় জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক টিমের যৌথসভায় আরো বক্তব্য রাখেন- চট্টগ্রাম বিভাগের আহŸায়ক- কাজী ফিরোজ রশীদ এমপি, সমন্বয় কমিটির আহŸায়ক- জিয়া উদ্দিন আহমেদ বাবলু, সমন্বয় কমিটির সদস্য সচিব- মোঃ আবুল কাশেম, ঢাকা বিভাগের আহŸায়ক- সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি, বরিশাল বিভাগের আহŸায়ক- গোলাম কিবরিয়া টিপু এমপি, রাজশাহী বিভাগের আহŸায়ক- এ্যাডভোকেট শেখ মুহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম,  রংপুর বিভাগের আহŸায়ক- মুজিবুল হক চুন্নু এমপি, খুলনা বিভাগের আহŸায়ক- সাহিদুর রহমান টেপা, সদস্য সচিব- সুনীল শুভ রায়, ময়মনসিংহ বিভাগের যুগ্ম আহŸায়ক ফখরুল ইমাম এমপি, সিলেট বিভাগের আহŸায়ক লে.জে. মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী এমপি, আন্তর্জাতিক বিষয়ক কমিটির সদস্য সচিব এটিইউ তাজ রহমান। উপস্থিত ছিলেন- প্রেসিডিয়াম সদস্য অধ্যাপিকা মাসুদা এম রশীদ চৌধুরী, নূর-ই-হাসনা লিলি চৌধুরী, এসএম. ফয়সল চিশতী, মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী, আতিকুর রহমান আতিক, ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী, এ্যাড. রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া, মো. মিজানুর রহমান, সৈয়দ দিদার বখত, জাফর ইকবাল সিদ্দিকী, আব্দুস সাত্তার মিয়া, আলমগীর সিকদার লোটন, উপদেষ্টা- এ্যাড. মো. হাসান সিরাজ সুজা, সোমনাথ দে, আশরাফ উদ দৌলা, মাহমুদুর রহমান মাহমুদ, ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যাপক ইকবাল হোসেন রাজু, জহিরুল ইসলাম জহির, মো. আরিফুর রহমান খান, অধ্যাপক মহাসিনুল ইসলাম হাবুল, সরদার শাহজাহান, জহিরুল আলম রুবেল, আহসান আদেলুর রহমান এমপি, মোস্তফা আল মাহমুদ, যুগ্ম মহাসচিব গোলাম মোহাম্মদ রাজু, শফিকুল ইসলাম মধু, নুরুল ইসলাম ওমর, হাসিবুল ইসলাম জয়, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. শাহ-ই-আজম, মোবারক হোসেন আজাদ, নির্মল দাস, আমির হোসেন ভূঁইয়া, শেখ মাতলুব হোসেন লিয়ন, মো. হেলাল উদ্দিন, এ্যাড. জুলফিকার হোসেন, মো. শাহজাহান মানছুর, যুগ্ম সাংগঠনিক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মামুনুর রশীদ, এবিএম লিয়াকত হোসেন চাকলাদার, দফতর সম্পাদক সুলতান মাহমুদ, কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য পনির উদ্দিন আহমেদ এমপি, সেকেন্দার আলী সেরনিয়াবাদ, মো. ইলিয়াস উদ্দিন।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here