বীর মুক্তিযোদ্ধা সাদেক হোসেন খোকা ইন্তেকাল

0
17

নিউইয়র্ক থেকে এনআরবি: বিএনপি নেতা, ঢাকার সাবেক মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা সাদেক হোসেন খোকা (৬৭) আর নেই। গতকাল ৪ নভেম্বর স্থানীয় সময় সোমবার ভোররাত ২টা ৫০ মিনিটে ( বাংলাদেশ সময় সোমবার বেলা ১২টা ৫০ মিনিট) শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন। এ সময় হাসপাতালে ছিলেন তার স্ত্রী, দুই পুত্র, কন্যা, জামাতাসহ স্বজনেরা। উল্লেখ্য, ক্যান্সারের চিকিৎসার জন্যে ২০১৪ সালের মে মাসে সস্ত্রীক নিউইয়র্কে এসেছিলেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকা। সেই থেকে নিউইয়র্কে বিশ্বখ্যাত মানহাটানের মেমোরিয়াল ¯েøায়ান ক্যাটারিং ক্যান্সার হাসপাতালের তত্ত¡াবধানে তার চিকিৎসা চলছিল। এমনি অবস্থায় গতমাসের শেষার্ধে খোকার মুখে ঘা হলে খাবার গ্রহণ করতে সমস্যা হচ্ছিল। সেজন্যে তাকে হাসপাতালে ভর্তির পর ২৭ অক্টোবর তাঁর শ্বাসনালীতে অস্ত্রোপচার করে টিউমার অপসারন করা হয়। এরপরই শারিরিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়েন। চিকিৎসকরাও হাল ছেড়ে দেন।  গত ৫ দিন যাবত তাকে কৃত্রিম পদ্ধতিতে শ্বাস-প্রশ্বাসের মাধ্যমে বাঁচিয়ে রাখার চেষ্টা করা হয়েছিল। মুক্তিযোদ্ধা খোকার শেষ ইচ্ছা অনুযায়ী তাঁর লাশ বাংলাদেশে পাঠানো হবে। এ প্রসঙ্গে নিউইয়র্কে বাংলাদেশের কন্সাল জেনারেল সাদিয়া ফয়জুননেসা এ সংবাদদাতাকে জানান যে, মুক্তিযোদ্ধা খোকার লাশ বাংলাদেশে পরিবহনের অনুমতি দেয়া হবে এবং লাশের সাথে তার স্ত্রীকেও ট্র্যাভেল ডক্যুমেন্ট দেয়া হবে। এ নিয়ে কোন সমস্যা হবে না। নিউইয়র্ক সময় সোমবার বাদ আসর জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টারে খোকার জানাযা অনুষ্ঠিত হবে। ভোর রাতে খোকার মৃত্যুসংবাদ জানার পর অনেকেই হাসপাতালে যান খোকার শোক-সন্তপ্ত পরিবারকে সহমর্মিতা জানাতে। সাদেক হোসেন খোকার মৃত্যুতে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান এবং মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর শোক প্রকাশ করেছেন।  উল্লেখ্য, মাওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টিতে (ন্যাপ) যোগদানের মাধ্যমে রাজনীতিতে পা রাখেন সাদেক হোসেন খোকা। পরে তিনি বিএনপিতে যোগ দেন ও দলের ঢাকা মহানগর শাখার সভাপতি হন। ১৯৯১ সালে তিনি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রথম সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন এবং পরে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী হন। তিনি তিনবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০০২ সালে তিনি ঢাকার মেয়র হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। তিনি ছিলেন অবিভক্ত ঢাকার শেষ নির্বাচিত মেয়র। ২০০৮ সালে তার বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে একটি মামলা করে দুদক। এরপর ২০১২ সালে চিকিৎসার উদ্দেশ্যে দেশ ছাড়েন সাদেক হোসেন খোকা। পরের বছর ২০১৫ সালে দুর্নীতির মামলায় তাকে ১৩ বছরের কারাদÐ দেয় ঢাকার একটি আদালত। ২০০১ সালে একই আসন থেকে তিনি এমপি নির্বাচিত হন এবং মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রীর দায়িত্ব পান। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির জাতীয় নির্বাচনের কয়েকদিন আগে সাবেক মন্ত্রী খোকাকে গ্রেপ্তার করা হয়। ২০১৪ সালের ১৪ মে মাসে সাদেক হোসেন খোকা চিকিৎসার জন্য যুক্তরাষ্ট্র যান। এরপর থেকে সেখানেই চিকিৎসাধীন ছিলেন। এ সময়কালে দেশে তার বিরুদ্ধে কয়েকটি দুর্নীতি মামলা হয়। এর কয়েকটিতে তাকে সাজাও দেয়া হয়েছে। পরিবারের পক্ষ থেকে তাঁর মৃতদেহ ঢাকায় আনার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। সাদেক হোসেন খোকার ইচ্ছা অনুযায়ী জুরাইন কবরস্থানে তাকে তাঁর বাবা-মায়ের কবরের পাশে দাফন করা হবে। দুই বছর আগে সাদেক হোসেন খোকার বাংলাদেশ পাসপোর্টের মেয়াদ শেষ হবার পর, নিউইয়র্কে বাংলাদেশ দূতাবাসে তিনি মেয়াদ বাড়ানোর আবেদন করেও জবাব পাননি। এখন তাঁর মৃতদেহ ঢাকায় নেয়ার জন্য বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে ট্রাভেল ডকুমেন্ট প্রয়োজন। তাদের পরিবারের পক্ষ থেকে বাংলাদেশ দূতাবাসে ট্রাভেল ডকুমেন্টের জন্য ইতিমধ্যে আবেদন করেছেন। সেই কাগজ হাতে পাবার পরই তাঁর মৃতদেহ দেশে ফিরিয়ে আনার সময়ক্ষণ পরিবার ঠিক করবেন। ফুসফুসের ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে সাদেক হোসেন খোকা নিউ ইয়র্কের মেমোরিয়াল ¯েøায়েন ক্যাটারিং ক্যান্সার ইন্সটিটিউট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। রোববার রাতে তাঁর শারীরিক অবস্থার গুরুতর অবনতি ঘটেছে বলে জানিয়েছিলেন নিউ ইয়র্কে অবস্থানরত তাঁর ঘনিষ্ঠ সহযোগী এবং বিএনপির ঢাকা মহানগর কমিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবদুস সালাম। গত সোমবার থেকে তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে বলে জানিয়েছিলেন তিনি। সাদেক হোসেন খোকা ১৯৫২ সালের ১২ই মে ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৭১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র হিসেবে তিনি মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন। সর্বশেষ সাদেক হোসেন খোকার পাসপোর্টের মেয়াদ শেষ হলেও সরকার তা নবায়ন করেনি।

শোক
সাদেক হোসেন খোকার মৃত্যুতে জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের শোক
নিজস্ব প্রতিবেদক : বিএনপি নেতা ও ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র বীরমুক্তিযোদ্ধা সাদেক হোসেন খোকার মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও বিরোধী দলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপি। গতকাল সোমবার এক শোক বার্তায় প্রয়াত মেয়র সাদেক হোসেন খোকার বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেছেন তিনি। পাশাপাশি শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনাও জানিয়েছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের। শোক বার্তায় জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান আরো বলেন, দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে সাদেক হোসেন খোকার অবদান অক্ষয় হয়ে থাকবে। একজন জনপ্রতিনিধি হিসেবেও তিনি সাধারন মানুষের আস্থা অর্জন করেছিলেন। বিএনপি নেতা ও ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র বীরমুক্তিযোদ্ধা সাদেক হোসেন খোকার মৃত্যুতে অনুরুপ শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব ও বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গা এমপি।

বিএনপি নেতা সাদেক হোসেন খোকার মৃত্যুতে জাসদের শোক
নিজস্ব প্রতিবেদক: জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু এমপি এবং সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার এমপি গতকাল সোমবার এক শোক বার্তায় বীর মুক্তিযোদ্ধা, বিএনপি নেতা, ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার মৃত্যুতে গভীর শোক এবং শোকসন্তপ্ত পরিবার-স্বজন-সহকর্মীদের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here