দক্ষিণে প্রার্থী প্রয়াত দুই মেয়র পুত্র উত্তরে আতিক বনাম তাবিথ

0
22

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করার আগেই বিভিন্ন ওয়ার্ডে প্রচার-প্রচারণা শুরু হয়েছে। পোস্টারে, দেয়াল লিখনে ছেয়ে গেছে। এদিকে প্রার্থী চ‚ড়ান্ত করা নিয়ে সমস্যায় পড়েছে সরকারি দল। বর্তমান মেয়র, কাউন্সিলরদের প্রত্যেকেই আসন্ন নির্বাচনে প্রার্থী হবেন। প্রচার-প্রচারণা চলছে তাদের পক্ষে। অথচ দলীয় জরিপেই মেয়র ও কাউন্সিলরদের পক্ষে দলের কর্মী, সাধারণ মানুষের সমর্থন প্রতিফলিত হয়নি তেমন একটা। দক্ষিণের মেয়র আতিকুল ইসলামের পক্ষে জনমত উত্তরের সাঈদ খোকনের চেয়ে অনেক বেশি প্রতিফলিত হয়েছে। দুই কর্পোরেশনেই মেয়র পদে দলের মধ্যেই দু’তিনজন করে প্রার্থী রয়েছেন। তারা প্রত্যেকেই যথেষ্ট জনপ্রিয় এবং যোগ্যতাসম্পন্ন বলে নিজেদের মনে করেছেন। কাউন্সিলর পদে মনোনয়নের ব্যাপারে বড় রকমের পরিবর্তনের সম্ভাবনা রয়েছে। জরিপে বর্তমান মেয়রদের মধ্যে তিন চতুর্থাংশকে বাদ দিয়ে বিতর্কের উর্ধ্বে থাকা উজ্জ্বল ভাবমূর্তির নতুন মুখ দেয়ার পক্ষে মত এসেছে।
অপরদিকে ক্ষমতাসীনদের প্রধান প্রতিদ্ব›দ্বী বিএনপিতে প্রার্থী নির্বাচন নিয়ে তেমন কোন সমস্যা নেই। দুই কর্পোরেশনেই জনপ্রিয়, বিতর্কের উর্ধ্বে থাকা, গ্রহণযোগ্য প্রার্থী রয়েছে বলে দলটির নেতারা মনে করেন। তাদের সমস্য কর্মী-সমর্থকরা সর্বাত্মকভাবে নির্বাচনী মাঠে থাকতে পারবেন কিনা। কারণ তাদের অনেকের বিরুদ্ধে মামলা, গ্রেফতারি পরোয়ানা রয়েছে। তরচেয়েও বড় ভয় হচ্ছে ভোটার সাধারণ কেন্দ্রে এসে ভোট দিতে আগ্রহী হন কিনা। ভোট দেয়ার ব্যাপারে তাদের মধ্যে আগ্রহ উদ্দীপনা সৃষ্টি করা বড় সমস্যা হয়ে আসবে। বিএনপি সিটি নির্বাচনে অংশ নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তফসিল ঘোষণার পর তারা দলীয় মনোনয়ন চ‚ড়ান্ত করে একক প্রার্থী ঘোষণা করবে। এফবিসিসিআই এর সাবেক সভাপতি, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল আউয়ালের পূত্র তাবিথ আউয়াল ঢাকা উত্তরের এক বহুল পরিচিত নাম। গত নির্বাচনেও তিনি প্রার্থী হয়েছিলেন। এখানে তার অবস্থান অনেক সংগত। বিএনপিতে কাইয়ুমসহ আরো কয়েকজন প্রার্থী হতে আগ্রহী হলেও কেন্দ্রীয় নেতাদের বৃহত্তর অংশ এবং অধিকাংশ কর্মী তাবিথের পক্ষে। তবে জামায়ত পৃথক প্রার্থী দিলে বিএনপিকে কঠিন নির্বাচনী লড়াইয়ে নামতে হবে।
ঢাকা দক্ষিণের বিএনপির সাত-আটজন আগ্রহী হলেও মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনা প্রয়াত মেয়র সাদেক হোসেন খোকার পূত্র ইঞ্জিনিয়ার ইশরার হোসেনের। ঢাকা শহরে বীর মুক্তিযোদ্ধা খোকা এক জনপ্রিয় নাম। পিতার জনপ্রিয়তা ও বিএনপির প্রার্থী সমর্থকদের ভ‚মিকা হবে ইশরারের প্রধান সম্বল। দক্ষিণে মীর্জা আব্বাসের স্ত্রী এবারও প্রার্থী হতে চাইবেন।
প্রত্যেক ওয়ার্ডেই বিএনপির কাউন্সিলর পক্ষে যোগ্য প্রার্থী রয়েছে। বর্তমান সরকার দলীয় কাউন্সিলরদের কিছু সংখ্যক উন্নয়ন কর্মকান্ড এবং ব্যক্তিগত আচার-আচারণের মাধ্যমে জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন। তবে অধিকাংশ কাউন্সিলরের বেলায় অবস্থাটা তেমন নয়। জনজীবনের সমস্যা, দুর্ভোগ লাঘবে তাদের আন্তরিক প্রচেষ্টার অভাব, ব্যক্তগত স্বার্থসিদ্ধি, কর্মীদের টেন্ডারবাজি, ভোটারদের সাথে দূরত্ব সরকার দলীয় বর্তমান কাউন্সিলরদের জন্য বাধা হয়ে কাজ করবে। দল মনোনয়ন যদি নাও দেয় তাদের প্রায় সকলেই আসন্ন নির্বাচনে প্রার্থী হবেন।
মেয়ার পদে উত্তরে আতিকুল ইসলাম ও দক্ষিণে সাঈদ খোকন আস্থাশীল যে জরিপে যে রেজাল্টই আসুক, মনোনয়ন তারাই পাবেন। ভয়াবহ ডেঙ্গু আক্রমন, জলাবদ্ধতা, ভয়ঙ্কর যানজট ছাড়া নগরবাসীর ন্যূনতম সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করতে দুই মেয়রের, বিশেষ করে দক্ষিণের মেয়রের ব্যাপক ব্যর্থতা মানুষকে হতাশ করেছে। এদিক থেকে তুলনামূলকভাবে উত্তরে আতিকুল ইসলাম ভাল অবস্থায় আছেন। পুরো মেয়াদে দায়িত্ব পালন করতে নাপারাও তাঁর পক্ষে কাজ করছে। ঢাকা দক্ষিণে সাবের হোসেন ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিনসহ চারজন এবং উত্তরের ব্যরিস্টার তাপস, মায়া, নানকসহ পাঁচজন মেয়র পদে আগ্রহী। শীর্ষ নেতৃত্ব ও নীতি নির্ধারকরা সবদিক ভেবে-চিন্তেই প্রার্থী স্থির করবেন বলে জানা যায়।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here