ঢাকা শহরের ২৩৭ কিলোমিটারে এম আরটি ও সাবওয়ে হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঢাকা শহরের বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে সাবওয়ে ও এম আরটি নির্মাণের পরিকল্পনা নিয়েছে সরকার। সম্ভাব্যতা সমীক্ষা ও প্রাথমিক নকশা প্রণয়নের কাজ শুরু করা হয়েছে। এজন্য বিদেশি ও স্থানীয় কনসালট্যান্টও নিয়োগ করা হয়েছে। রাজধানীর যে ভয়াবহ যানজট নৈমত্তিক ব্যাপারে হয়ে দাঁড়িয়েছে তাতে বিদ্যমান সড়ক প্রশস্ত করার সুযোগ নেই। হেঁটে চলাও অসম্ভব হচ্ছে। এমআরটি ও সাবওয়ের বিকল্প নেই বলে পুরো শহরকে এর নেটওয়ার্কে আনার মহাপরিকল্পনা নেয়া হয়েছে।
সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, ঢাকা শহরের রাজউক এরিয়া সাবওয়ে এমআর টি দ্বারা কানেক্ট করা হবে। প্রস্তাবিত এমআরটি ১ হতে ৬ এর এলাইনমেন্টের ভিত্তিতে ঢাকা শহরকে সাবওয়ে দ্বারা কানেকট করতে মোট ২৩৭ কিলোমিটার দৈর্ঘৈর সাবওয়ে এমআরটি নির্মাণ করতে হবে। ৯০ কিলোমিটার সাবওয়ে নির্মাণের জন্য ফিজিবিলিটি স্টাডি ও প্লিলিমিনারি ডিজাইনের কাজ চলছে। অবশিষ্ট ১৪৭ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যরে সাবওয়ে এমআরটি নির্মাণ করা হবে সে সর্ম্পকে সমীক্ষা চালানো হবে। পুরো ২৩৭ কিলোমিটার এলাকায় সম্ভাব্যতা জরিপ করা হবে। ঢাকা শহরে পুরো সাবওয়ে,এম আরটির পূর্নাঙ্গ নেটওয়ার্ক গড়ে তোলার জন্য সম্ভাব্যতা সমীক্ষা ও প্রাথমিক নকশা প্রণয়নে ব্যয় হবে ৪৪৬ কোটি ২২ লাখ টাকা।
জানা যায়, সমীক্ষা ও প্রাথমিক নকশা প্রণয়নে সময় লাগবে দুই বছর। ২০২১ সালের ৩১ মার্চের মধ্যে এ কাজ শেষ করা হবে। ২০২১ সালের মধ্যেই বাস্তবায়ন কাজ শুরু করা হবে। রাজধানীর কোন কোন এলাকা সাবওয়ের উপযোগী আর কোন কোন এলাকা এমআরটিভুক্ত থাকবে তা চ‚ড়ান্ত করা হবে।
সংশ্লিষ্টরা মনে করেন গোটা শহর সাবওয়ে ও এমআরটির আওতায় আনার পরিকল্পনা বাস্তবায়নে দেড় লক্ষ কোটি টাকার ও বেশি ব্যয় হবে। দেশি-বিদেশি বিনিয়োগে প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে। পাবলিক-প্রাইভেট পার্টনারশিপ থাকবে। বেসরকারি খাতে দেশি-বিদেশি উদ্যোক্তরা নির্মাণ শেষে পঁচিশ থেকে ত্রিশ বছর প্রকল্প পরিচালনা, রক্ষণাবেক্ষনের দায়িত্বে থাকবে। এই সময়ের মধ্যে তারা মুনাফাসহ বিনিয়োজিত অর্থ উঠিয়ে আনবে। তারপরই এর মালিকানা সরকারের কাছে হস্তান্তর করবে।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here