বিমান এবার ২০ হাজার হজযাত্রী হারাবে

নিজস্ব প্রতিবেদক: পবিত্র হজ নিয়ে এ যাবত বানিজ্য করেছে বেসরকারি হজ এজেন্সি। এবার বিমান মন্ত্রণালয়ের বদৌলতে খোদ সরক্রাই হজ বানিজ্য করছে। সরকারের শীর্ষ পর্যায়ে থেকে এ ব্যাপারে কঠোর সতর্কতা অবলম্বন করা হচ্ছে। বিমান পরিবহন মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ বিমানকে হজযাত্রীদের ভাড়া অযৌক্তিকভাবে না বাড়াতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। কি কারনে তারা এবারের হজে হজযাত্রী ভাড়া অস্বাভাবিকহারে বাড়ানোর প্রস্তাব করেছে জানতে চাওয়া হয়েছে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ব্যক্তিগতভাবে অত্যন্ত ধর্মপ্রান। সৌদি রাজা ও রাজ পরিবারের সাথে বাংলাদেশের উন্নত সম্পর্ক গড়ে ওঠার পিছনে অন্যতম কারণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ধর্মপরায়নতা। বিগত জোট সরকারের মত আওয়ামী লীগ সরকারের গত মেয়াদেও ক্রুটিপূর্ন, অদক্ষ হজ ব্যবস্থাপনার জন্য হজযাত্রী -হাজীদের হয়রানি, ভোগান্তির শিকার হতে হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুরোধে সৌদি সরকার বাংলাদেশি হজযাত্রীদের বিষয়ে সদয় হয়ে বেশকিছু পদক্ষেপ নেয়। এর অন্যতম হচ্ছে ঢাকায় বিমান বন্দরেই হজযাত্রীদের ইমিগ্রেশন সম্পন্ন করা। গতবারই প্রথম এ ব্যবস্থা চালু করা হয়। গত বছর ৬০ হাজার হজযাত্রীর ইমিগ্রেশন ঢাকায় করা হয়। এবার শতভাগ হজযাত্রীর ইমিগ্রেশন বিমান বন্দরে সম্পাদন করার জন্য প্রধানমন্ত্রী আগাম নির্দেশনা দিয়ে রেখেছেন। কিন্তু বিমান কর্তৃপক্ষ সিডিউল অনুযায়ী ফ্লাইটের ব্যবস্থা করতে পারবেন কিনা তা নিয়ে সংশয় রয়েছে। তার উপর রয়েছে করোনা ভাইরাস ঝুঁকি। নতুন বিশালাকৃতির ক্রাফট আসার পরও বিমান পরিবহন মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ বিমানের অদক্ষতা নিয়ে বেসরকারি হজ এজেন্সিগুলো শঙ্কিত। বিশেষ করে বিমান পরিবহন মন্ত্রণালয় ভাড়া বাড়ানোর ফলে বিমানের হজযাত্রীর সংখ্যা উল্লেখযোগ্যভাবে কমে যেতে পারে। বাংলাদেশের ২০ হাজার হজযাত্রীর অন্য দেশের তৃতীয় ক্যারিয়ারে হজ করতে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। বিমানের অস্বাভাবিক ভাড়ার কারনেই তা হবে। এ’দিকে বিমান থার্ড ক্যারিয়ারে হজযাত্রী পরিবহন স্থায়ীভাবে বন্ধ করার চেষ্টা করছে।
ক্রুটিপূর্ন হজ ব্যবস্থাপনার কারনে বরাবর হজযাত্রী ও হাজীরা দুর্ভোগের শিকার হলেও গত হজে এর লক্ষ্যনীয় ব্যতিক্রম পরিলক্ষিত হয়। এতে শেখ হাসিনা ও তার সরকারের সুনামও হয়েছে। প্রধানত বিমানের ফ্লাইট সিডিউল বিপর্যয় হজযাত্রীদের দুর্ভোগ দিয়েছে। এবারে নতুন সুপরিসর ক্রাফট সংগ্রহের পর সিডিউল বিপর্যয় ও দুর্ভোগ থেকে হজযাত্রীরা রক্ষা পাবেন বলেই আশা করা হচ্ছে। কিন্তু তারচেয়েও বড় বিপদ অপেক্ষা করছে। মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে বিমান-বাংলাদেশ এয়ার লাইন্স হজযাত্রী ভাড়া অস্বাভাবিকহারে বাড়িয়েছে।
প্রধানমন্ত্রীর অনুরোধে সৌদি আরব এবারে বাংলাদেশ থেকে অতিরিক্ত দশ হাজার হজযাত্রীকে হজে যাওয়ার অনুমতি দিয়েছে। এবারে মোট এক লক্ষ সায়ত্রিশ হাজার হজযাত্রী হজে যাওয়ার সুযোগ পাবেন। এদের অর্ধেক পরিবহন করবে বিমান। বাকী অর্ধেক হজযাত্রী পরিবহন করবে সৌদিয়া। গত হজে হজযাত্রী পিছু ভাড়া ছিল ১ লাখ ২৮ হাজার টাকা। এর আগের বছর ছিল ১ লাখ ২৪ হাজার টাকা। এবারের হজে হজযাত্রী পিছু ভাড়া নির্ধারন করা হয়েছে ১ লাখ ৫৪ হাজার টাকা। ধর্মমন্ত্রণালয় এর তীব্র বিরোধীতা করেছে। আগামী মাসে অথবা এ মাসের শেষের দিকে বিমান পরিবহন মন্ত্রণালয় বর্ধিত বিমান ভাড়ার প্রস্তাব অনুমোদনের জন্য মন্ত্রি পরিষদে পাঠাবে। বিমান পরিবহন মন্ত্রণালয়ের বিমান ভাড়া অস্বাভাবিক হারে বাড়ানোর সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া হয়েছে বেসরকারি হজ এজেন্সিগুলোর মধ্যে। অযৌক্তিকহারে অন্যায়ভাবে বিমান ভাড়া বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে উল্লেখ করে তারা বলেছেন এরফলে এবারে হজযাত্রীর সংখ্যা অনেক কমে যাবে। অস্বাভাবিকভাবে ভাড়া বাড়ানোর মাধ্যমে বাংলাদেশ বিমান পাঁচশ কোটি টাকারও বেশি বানিজ্য করবে। একইভাবে সম পরিমান বাড়তি আর্থিক সুবিধা সাওদিয়ার হাতে তুলে দেবে। বিভিন্ন দেশের এয়ার লাইন্সের ঢাকা থেকে জেদ্দায় যাওয়ার ভাড়া বিমানের এই হারের তিনভাগের একভাগ। বাংলাদেশ বিমান ও সাওদিয়াও হজ ছাড়া অন্য সময়ে প্রায় অভিন্ন রেটে সাধারনত যাত্রী পরিবহন করে থাকে। পবিত্র হজে ইসলাম ও হজযাত্রীদের সেবার নামে বিমান পরিবহন মন্ত্রণালয় ও বিমান নিরীহ, ধর্মপ্রাণ হজযাত্রীদের পকেট কাটছে এবং সাওদিয়াকে সে ব্যবস্থা করে দিচ্ছে। হাব এবং ধর্ম মন্ত্রণালয়ের তীব্র আপত্তির মুখে মন্ত্রি পরিষদে বিমানের প্রস্তাবিত ভাড়ার হার কার্যকর করার সিদ্ধান্ত হয়ত নাও নেয়া হতে পারে। বর্ধিত হার আংশিকভাবে হলেও কমানোর সম্ভাবনা রয়েছে। কারণ তাতে দেশব্যাপী তীব্র বিরূপ প্রতিক্রিয়া হবে। যা এরিমধ্যে শুরু হয়েছে। জানা যায়, বিমান পরিবহন মন্ত্রণালয় বিমানে যাত্রীভাড়া ১ লাখ ৪৫ হাজার টাকা করতে রাজী হয়েছে। অর্থাৎ তারা ভাড়া কমাচ্ছে মাত্র ৭ হাজার টাকা। ধর্ম মন্ত্রণালয় ও হাব এতে রাজী নয়। তারা মনে করেন ভাড়া কমপক্ষে আরো পনের হাজার টাকা কমানো উচিৎ।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here