একমাত্র দরদাতাকেই বেছে নেয়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক: চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দরের কার্গো ও কনটেইনার হ্যান্ডলিংয়ের জন্য টারমিনাল অপারেটর নিয়োগ দেয়ার ক্ষেত্রে অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রতিযোগিতামূলকভাবে নিয়োগের স্থলে দরপত্রে অংশগ্রহণকারি একটিমাত্র প্রতিষ্ঠানকেই বেছে নেয়া হয়েছে।
নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, চট্টগ্রাম বন্দরের কার্গো ও কনটেইনার প্রায় দ্বিগুন হারে বেড়েছে। তারপরও শতভাগ কার্গো ও কনটেইনার খালাশ করা সম্ভব হয়না। কার্গো ও কনটেইনার দ্রæত খালাশ করতে না পারায় দীর্ঘসময় সেগুলো বন্দরে পড়ে থাকে। এতে অমদানীকারকদের ভোগান্তি ও আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয়। জানা যায়, দেশের আমদানি -রফতানির ৯২ শতাংশ পণ্য চট্টগ্রাম বন্দরের মাধ্যমে সমুদ্র পথে পরিবাহিত হয়। ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে ১৯টি জেটির মাধ্যমে চট্টগ্রাম বন্দরে প্রায় ১০ কোটি টন কার্গো ও প্রায় ৩০ লাখ টিউইস কনটেইনার হ্যান্ডলিং করা হয়। পূর্ববর্তী পাঁচ বছরের তুলনায় হ্যান্ডলিং ক্ষমতা দ্বিগুন পরিমান বাড়লেও দ্রæততার সাথে সকল পণ্য হ্যান্ডলিং করা সম্ভব হয়না। কারণ প্রধানত জেটি স্বল্পতা ও অভিজ্ঞ, দক্ষ টারমিনাল অপারেটরের অভাব। এতে অনেক সময় কার্গোর ও কনটেইনারের জট পড়ে যায়। আমদানি ও রফতানির জন্য কার্গোর পরিমান দিন দিন বেড়ে চলেছে। সেই অনুপাতে জেটি নির্মিত হয়নি। চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ গত কয়েক বছরের বন্দর ব্যবস্থাপনা ও পরিচালনায় উল্লেখযোগ্য উন্নতি সাধন করলেও দক্ষ, অভিজ্ঞ টারমিনাল অপারেটরের অভাবে কাঙ্খিত মাত্রায় পণ্য হ্যান্ডলিংয়ে গতি আনা সম্ভব হচ্ছেনা। ক্রম বর্ধমান কার্গো ও কনটেইনার আমদানী-রফতানির ফলে এগুলো নিরবচ্ছিন্ন ও দ্রæততার সাথে হ্যান্ডলিংয়ের জন্য দক্ষ, অভিজ্ঞ টারমিনাল অপারেটর নিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ। কিন্তু প্রায় এক বছরেও এ সিদ্ধান্ত কার্যকর করা সম্ভব হয়নি। গত বছরের জানুয়ারিতে টারমিনাল অপারেটর নিয়োগের জন্য আন্তর্জাতিক দরপত্র আহŸান করা হয়। এতে চারটি দেশি বিদেশি প্রতিষ্ঠান দরপত্র ক্রয় করে। কিন্তু নির্ধারিত সর্বশেষ তারিখ পর্যন্ত একটিমাত্র প্রতিষ্ঠান দরপত্রে অংশ নেয়। একটি মাত্র প্রতিষ্ঠান অংশ নেয়ায় কারিগরি ও আর্থিকভাবে যোগ্যতমকে যাচাই করার সুযোগ ছিলনা। সায়েফ পাওয়ার টেক নামক প্রতিষ্ঠান ছিল একমাত্র অংশগ্রহণকারি দরদাতা। কারিগরি মূল্যায়নে এদের অফার যথেষ্ট সন্তোষজনক না হওয়ায় তারা পুনরায় দরপত্র আহŸানের পক্ষে সুপারিশ করেন। কর্তৃপক্ষীয়ভাবে জানান হয় যে, এর আগেও টারমিনাল অপারেটর নিয়োগের জন্য আন্তর্জাতিক দরপত্র আহŸান করা হয়েছিল। কিন্তু তাতে দেশি-বিদেশি কোন প্রতিষ্ঠান অংশ নেয়নি। আগামীতেও একই অবস্থা হতে পারে আশঙ্কায় একমাত্র অংশগ্রহণকারি কোম্পানিকেই বেছে নেয়া হয়।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here