মানবপাচারে জিরো টলারেন্স : সংসদে প্রধানমন্ত্রী

0
146

নিজস্ব প্রতিবেদক : মানবপাচারকে একটি ‘আন্তর্জাতিক সমস্যা’ হিসাবে উল্লেখ করে এর বিরুদ্ধে সরকারের ‘জিরো টলারেন্স’ নীতির কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
জাতীয় সংসদের বুধবারের অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রীর জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে তিনি বলেন, “মানবপাচারকারীরা আন্তর্জাতিক চক্রের সাথে জড়িত। সাম্প্রতিককালে অবৈধভাবে মানবপাচারের বিষয়টি আশঙ্কাজনক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। বাংলাদেশ এই মানবপাচারের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান গ্রহণ করেছে।”
নীলফামারী-৩ আসনের সাংসদ গোলাম মোস্তফার এক প্রশ্নে প্রধানমন্ত্রীর এই জবাব আসে।
শেখ হাসিনা বলেন,“মানবপাচারকারীদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করতে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।” পাচারের শিকার বাংলাদেশি নাগরিকদের দ্রুত দেশে ফিরিয়ে আনা এবং মানব পাচার রোধে এ অঞ্চলের দেশগুলোকে সঙ্গে নিয়ে সমন্বিতভাবে কাজ করার বিষয়ে বাংলাদেশ ‘কূটনৈতিক প্রচেষ্টা’ অব্যাহত রেখেছে বলে সংসদকে জানান সরকারপ্রধান।
গত এপ্রিলে থাইল্যান্ডের জঙ্গলে পাচারকারীদের একটি পরিত্যক্ত আস্তানায় গণকবর পাওয়ার পর আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সাগর পথে মানবপাচারের বিষয়টি নিয়ে নতুন করে তোলপাড় শুরু হয়।
এরপর মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া ও থাইল্যান্ড উপকূলে সাগরে ভাসমান অবস্থায় পাচারকারীদের কয়েকটি নৌকা থেকে তিন হাজারের বেশি মানুষকে উদ্ধার করা হয়েছে, যারা বাংলাদেশি ও মিয়ানমারের রোহিঙ্গা বলে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের তথ্য।
সম্প্রতি মিয়ানমার উপকূলে ভাসমান একটি নৌকা থেকে উদ্ধার ২০০ জনের মধ্যে ১৭৮ জনের জাতীয়তা নিশ্চিত হওয়ার পর তাদের দেশে ফিরিয়ে আনে সরকার।
সরকারদলীয় সংসদ সদস্য ফরহাদ হোসেনের এক প্রশ্নে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাংলাদেশ সফর ফলপ্রসূ হয়েছে বলে মন্তব্য করেন শেখ হাসিনা।
তিনি বলেন, “ভারতের প্রধানমন্ত্রী অভিন্ন নদীর পানি বণ্টনের বিষয়টিকে রাজনীতির ঊর্ধ্বে স্থান দিয়ে মানবিক দিককে প্রধান্য দিয়েছেন। তিস্তার পানি বণ্টন চুক্তি যথাশীঘ্র সম্পাদনের আশ্বাস দিয়েছেন।”
জুনের প্রথম সপ্তাহে দুই দিনের বাংলাদেশ সফরে আসেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তার সফরে সড়ক যোগাযোগসহ বেশ কয়েকটি চুক্তি ও প্রটোকল সই হয়।
বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের পেনশন প্রথা চালু বিষয়ে এম আবদুল লতিফের প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “বেসরকারি খাতে পেনশন প্রথা চালুর পরিকল্পনা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকেই নিতে হবে। এ ব্যাপারে সরকার সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।”
জাতীয় সামাজিক নিরাপত্তা কৌশলপত্রের আওতায় এ বিষয়ে একটি সমীক্ষা পরিচালনার প্রস্তাব করা হয়েছে বলেও সংসদকে জানান তিনি।

বেগম ফজিলাতুন নেসা বাপ্পীর প্রশ্নে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “জাতির পিতাকে হত্যার মধ্য দিয়ে সংবিধান ও আর্মি অ্যাক্টের বিধি বিধান লঙ্ঘন করে জিয়াউর রহমান একাধারে সেনাপ্রধান ও রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব গ্রহণ করে। হত্যাকারী জেনারেল জিয়া নিজ ক্ষমতাকে বৈধ করার অপপ্রয়াস হিসেবে গণভোটের আয়োজন করে। দেশ গণতান্ত্রিক ধারা থেকে বিচ্যুত হয়।
আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে দীর্ঘ সংগ্রামের মাধ্যমে আমরা দেশকে গণতান্ত্রিক ধারায় ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছি। ইনশাল্লাহ আমরা গণতন্ত্রের এ অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখব।”
বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের হরতাল-অবরোধে সহিংসতা ও নাশকতার প্রসঙ্গ তুলে সাংসদ মাহফুজুর রহমানের এক প্রশ্নে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “পেট্রোল বোমায় মানুষ পুড়িয়ে মারাসহ নানা ধরনের নাশকতামূলক কর্মকা- যারা ঘটিয়েছে এবং এর হুকুমদাতাদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে।”
সংসদ নেতা বলেন, বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট অবরোধ ও হরতাল কর্মসূচির নামে ‘সহিংসতা ও নাশকতামূলক’ কর্মকা-ের মাধ্যমে সামাজিক শান্তি ও শৃঙ্খলা ‘বিঘ্নিত করার অপচেষ্টা’ চালায়।
“কিন্তু আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নিরলস প্রচেষ্টা ও দৃঢ়তায় তা প্রতিহত করে আমরা জনজীবনে নিরাপত্তা ও স্বস্তি বজায় রাখতে সক্ষম হয়েছি। জনগণও আমাদের পাশে ছিল। তারা অনৈতিক অবরোধ ও হরতাল মানেনি।”
সরকার দলীয় সংসদ সদস্য সামশুল হক চৌধুরীর এক প্রশ্নের জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, “ইস্যুবিহীন আন্দোলন করে বিএনপি জামায়াত শুধু দেশের সম্পদের ক্ষতিই করেনি, তাদের এ সকল কর্মকা-ে দেশের ভাবমূর্তি মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বৈদেশিক বিনিয়োগ অনেকাংশে নিরুৎসাহিত হয়েছে।”
‘রাজনৈতিক কর্মসূচির নামে’ বিএনপি-জামায়াতের ‘নাশকতামূলক কর্মকা- ও অরাজকতার বিরুদ্ধে’ সারাদেশে বিপুল সংখ্যক মামলা হয়েছে বলেও সংসদকে জানান প্রধানমন্ত্রী।
তিনি বলেন, “দ্রুত বিচারের লক্ষ্যে সন্ত্রাসবিরোধী আইনের অধীনে এসব মামলার বিচার করতে জেলা জজদের এখতিয়ার প্রদান করা হয়েছে। দায়েরকৃত মামলাগুলোর তদন্ত কাজ দ্রুত নিষ্পত্তির লক্ষ্যে ঊর্ধ্বতন অফিসারদের দ্বারা তদন্ত মনিটরিং করা হচ্ছে।”
সরকার যে কোনো সহিংসতা প্রতিরোধে বদ্ধপরিকর বলেও প্রধানমন্ত্রী উল্লেখ করেন।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here