ভোলা-লক্ষ্মীপুর রুটের ইলিশা ফেরিঘাট পরিদর্শন নৌ পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান

0
166

মোঃ মনিরুল ইসলাম, ভোলা  : শেখ হাসিনার সরকারের আমলে  নৌ দুর্ঘটনা  রোধে কার্যকরী পদক্ষেপ  নেওয়ায়  নৌ দুর্ঘটনা কমে  গেছে। এখন আর ঈদের সময় মানুষকে দুর্ঘটনার কবলে পড়তে হয় না।  ১১ জুলাই শনিবার দুপুরে  ভোলা-লক্ষ্মীপুর রুটের ইলিশা  ফেরিঘাট পরিদর্শনকালে তিনি এ কথা বলেন ,নৌ পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান । তিনি বলেন, বিগত  কোনো সরকার  দেশে বিআইডব্লিউটিসির জন্য  নৌযান নির্মাণ করেনি। কিন্তু বর্তমান সরকার এমভি বাঙালি ও এমভি মধুমতি নামে দুটি নিরাপদ  নৌযান নির্মাণ করেছে। এছাড়া আরো দুটি স্টিমার ও উপকূলীয় জাহাজ  তৈরির পরিকল্পনা হয়েছে।
ইলিশা  ফেরিঘাটে অত্যাধুনিক টার্মিনালসহ অবকাঠোমাগত উন্নয়নের কথা জানিয়ে তিনি বলেন ভোলা-ঢাকা রুটে রকেট সার্ভিস চালু ও  ভোলা-লক্ষ্মীপুর রুটে ঈদের আগেই আরেকটি  ফেরি  দেওয়ার  ঘোষণা  দেন।
মন্ত্রী বলেন, গত ২০০৯  থেকে ২০১৪ পর্যন্ত ঈদের সময়  নৌ দুর্ঘটনা ঘটেছে মাত্র দুটি। গত ৪ সরকারের আমলের হিসাব করলে  দেখা যাবে ২০০১  থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত খালেদা জিয়া সরকারের আমলে ৩০টির অধিক  নৌ দুর্ঘটনা ঘটেছে। বর্তমান সরকার  দুর্ঘটনা  রোধে সক্ষম হয়েছে এবং ভবিষ্যতেও তা অব্যাহত থাকবে।
তিনি বলেন, শ্রমিক-মালিক, প্রশাসন,  নৌ মন্ত্রণালয়, বিআইডব্লিউটিএসহ আমাদের  যে সংস্থাগুলো আছে তার কাজ গুরুত্বের সাথে মনিটরিং করা হয়। যাতে  কোনো দুর্ঘটনা না ঘটে। এ সময় অতিরিক্ত যাত্রী  বোঝাই হয়ে  নৌযানে উঠা  থেকে বিরত থাকতে যাত্রীদের প্রতি আহ্বান জানান মন্ত্রী।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বিআইডব্লিউটিএর  চেয়ারম্যান  মোজাম্মেল হক, বিআইডব্লিউটিসির  চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান, মহাব্যবস্থাপক ডিএম আখন্দ,  ভোলার  জেলা প্রশাসক  মোঃ  সেলিম  রেজা, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মনিরুজ্জামানসহ স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তারা।
এরআগে  ভোলা  ফেরিঘাট স্বার্থরক্ষা উন্নয়ন কমিটি আয়োজনে ইলিশা  ফেরিঘাট এলাকায় ঘাট সংস্কারসহ ১১ দফা দাবি আদায়ের লক্ষে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।
মানববন্ধনে  বক্তব্য রাখেন, বিটিভির ভোলা জেলা প্রতিনিধি এম এ তাহের, অমিতাব রায় অপু, সাহাদাত শাহিন প্রমুখ। পরে কমিটির  নেতারা  নৌ পরিবহন মন্ত্রীকে স্মারকলিপি  দেয়।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here