কবিতার যোদ্ধাকে শেষ বিদায়

0
709

নিজস্ব প্রতিবেদক : একুশে পদক ও বাংলা একাডেমি পুরস্কারজয়ী এই কবির মরদেহ সোমবার সকালে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নেওয়া হলে পুলিশের একটি চৌকস দল এই মুক্তিযোদ্ধাকে গার্ড অব অনার দেয়। সরকারের মন্ত্রী, লেখক-শিল্পী-বুদ্ধিজীবী আর নানা ভক্ত পাঠকের শ্রদ্ধার ফুলে ফুলে ছেয়ে যায় কবির কফিন।
শ্রদ্ধা নিবেদনের পর সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেন, “কবি রফিক আজাদ একজন সংগ্রামী মানুষ ছিলেন। দেশের স্বাধীনতা সংগ্রাম, দেশ রক্ষায় সংগ্রাম করেছেন। সারা জীবন তিনি মানুষের অধিকার আদায়ে সংগ্রাম করে গেছেন।” দীর্ঘদিন চিকিৎসাধীন থাকার পর গত শনিবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে (বিএসএমএমইউ) মারা যান রফিক আজাদ, তার বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর।
কবিপতœী রাজধানীর তিতুমীর কলেজের অধ্যক্ষ দিলারা হাফিজ সেদিন বলেছিলেন, একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তার স্বামীকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন করা হবে, শুধু এটাই তার চাওয়া। বিকালে মিরপুর শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে  দাফন করা হয় ‘আজীবন সংগ্রামী’ এই কবিকে।
শহীদ মিনারে তার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে কবি নুরুল হুদা বলেন, “আমাদের কালে রফিক আজাদ অর্থ স্বাধীন কমরেড। কবিতায় নান্দনিকতায় মানবিকতায় এবং জীবনাচরনে আমাদের কালের এক শ্রেষ্ঠ জীবনযোদ্ধা, মুক্তিযোদ্ধার নাম রফিক আজাদ। যতদিন বাংলা ও বাঙালি থাকবে, রফিক আজাদ স্বাধীন বাঙালির প্রতীক হয়ে থাকবেন।”
সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হক, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাবেক সভাপতি নাসির উদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু, কবিতা পরিষদের সভাপতি মুহাম্মদ সামাদ ছাড়াও বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি, বাংলাদেশের ওয়ার্কাস পার্টি, ঢাকা মহানগর আওয়মামী লীগ, বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী, কেন্দ্রীয় খেলাঘর, ঢাকা থিয়েটার, বাংলাদেশ সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশনা সমিতি, জাতীয় জাদুঘরসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে কবির কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়।
বেলা ১২টা পর্যন্ত কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে কবির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে কফিন নিয়ে যাওয়া হয় তার পুরনো কর্মস্থল বাংলা একাডেমিতে। জোহরের পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় মসজিদ ও পরে ধানম-ির বাসায় হয় জানাজা। ছেলে অব্যয় আজাদ জানান, বিকালে মিরপুর শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে একুশে পদকপ্রাপ্তদের সারিতে চিরনিদ্রায় শায়িত হন কবি রফিক আজাদ।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here