ওয়ালটন কারখানায় ইউক্রেনের রাষ্ট্রদূত ‍॥ সিআইএস দেশগুলোতে ওয়ালটন পণ্য রপ্তানির সম্ভাবনা

0
152

নিজস্ব প্রতিবেদক : এবার সিআইএসভূক্ত দেশগুলোতে ওয়ালটন পণ্য রপ্তানির সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। বাংলাদেশসহ এ অঞ্চলে নিযুক্ত ইউক্রেনের রাষ্ট্রদূত ওয়ালটন কারখানা পরিদর্শন করে ওয়ালটন পণ্য আমদানিতে বিশেষ আগ্রহ দেখিয়েছেন। চলতি সপ্তাহেই একটি উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধিদল এবিষয়টি এগিয়ে নিতে বাংলাদেশ সফর করবে। বাংলাদেশ, ভারত, নেপাল ও শ্রীলঙ্কার জন্য নিযুক্ত ইউক্রেনের রাষ্ট্রদূত ওলেকসান্দ্রা ডি শেভচেঙ্কো গত বুধবার গাজীপুরের চন্দ্রায় ওয়ালটন কারখানা পরিদর্শন করেন। তিনি ওয়ালটন পণ্যের উৎপাদন প্রক্রিয়া দেখে সন্তোষ প্রকাশ করেন। তার দেশে ওয়ালটন পণ্য বাজারজাত করার ব্যাপারে তিনি খুবই আগ্রহ দেখান।
এসময় রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে ছিলেন ইউক্রেনের কৃষি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উপদেষ্টা ড. আব্দুস সালাম, ওয়ালটনের উর্ধ্বতন লে. কর্নেল (অব.) কর্মকর্তা আব্দুল কাদের, লোকমান হোসেন আকাশ প্রমূখ।
কারখানা পরিদর্শন শেষে রাষ্ট্রদূত ওয়ালটন হাইটেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের চেয়ারম্যান এসএম শামসুল আলমের সঙ্গে বৈঠক করেন। সেসময় ইউক্রেনের রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশ থেকে ওয়ালটন ব্র্যান্ডের বিভিন্ন পণ্য সেদেশে বাজারজাত করার ব্যাপারে আগ্রহ দেখান। তিনি জানান, এক সপ্তাহের মধ্যেই ইউক্রেনের একটি উচ্চ পর্যায়ের ব্যবসায়ী প্রতিনিধিদল বাংলাদেশে আসছে। তারা সরেজমিন ওয়ালটন পণ্যের বিভিন্ন উৎপাদন ইউনিট ঘুরে দেখে রপ্তানি আদেশ দেবেন। রাষ্ট্রদূত আরো জানান, বিশেষ করে ওয়ালটন ফ্রিজের প্রতি তাদের আগ্রহ বেশি।
জানা গেছে, আজ কালেরর মধ্যেই (রবি ও সোমবার) ইউক্রেনের ওই ব্যবসায়ী প্রতিনিধি দল বাংলাদেশে আসছে। তারা ইলেকট্রনিক্স পণ্য ছাড়াও বাংলাদেশের তৈরি পোশাক, সিরামিকস ও ওষুধ আমদানি করতে আগ্রহী।
উল্লেখ্য সিআইএস (কমনওয়েলথ ইন্ডিপেন্ডেন্ট স্টেটস) হচ্ছে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নভূক্ত দেশগুলোর সংগঠন। ইউক্রেনের রাষ্ট্রদূত জানান, তার দেশের মাধ্যমে সিআইএসভূক্ত দেশগুলোতে সহজেই বাংলাদেশী পণ্যের বিশাল বাজার তৈরি হবে এবং সেটা এখন কেবল সময়ের ব্যাপার মাত্র। কারন পরিবর্তিত বৈশ্বিক বানিজ্য কৌশলের অংশ হিসেবে সিআইএসভূক্ত দেশগুলো বাংলাদেশের সঙ্গে বানিজ্য উন্নয়নে অতি আগ্রহী।
এর আগে ২০১১ সালের ১৭ আগস্ট ইউক্রেনের কৃষি এবং খাদ্যবিষয়ক মন্ত্রী মাইকোলা প্রিসাঝনুক ওয়ালটন কারখানা পরির্দশন করেছিলেন। তিনি দেশে ফিরে ওয়ালটন তথা বাংলাদেশ থেকে পণ্য নেয়ার ব্যাপারে আগ্রহ দেখিয়েছিলেন। তার ওই সফরের ফলোআপ হচ্ছে রাষ্ট্রদূতের এই পরির্দশন।
সিআইএসভূক্ত দেশগুলোর মধ্যে রয়েছে রাশিয়া, ইউক্রেন, বেলারুশ, জর্জিয়া, আজারবাইজান, আর্মেনিয়া, কাজাকিস্তান, কিরগিজস্তান, মালদোবা, তাজিকিস্তান, তুর্কিমেনিস্তান এবং উজবেকিস্তান।
ওয়ালটনের উর্ধত্বন কর্মকর্তা লোকমান হোসেন আকাশ বলেন, ইউক্রেন ওয়ালটন পণ্যের ব্যাপারে বিশেষভাবে আগ্রহী। এর কারন ওয়ালটন পণ্যের গুনগত উচ্চমান এবং সাশ্রয়ী মূল্য। তিনি জানান, রাষ্ট্রদূত ওয়ালটনকে আশ্বস্ত করেছেন, সিআইএসভূক্ত দেশগুলোতে ওয়ালটন খুব সহজেই তার বাজার সম্প্রসারণ করতে পারে। সেক্ষেত্রে ইউক্রেন বাংলাদেশকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করবে।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here