হুমায়ুনের পরিবারকে না জানিয়ে ফারুকীর ‘ডুব’ আইনের আশ্রয় চাইবেন শাওন

0
120

বিনোদন প্রতিবেদক : মোস্তফা সরয়ার ফারুকী পরিচালিত ‘ডুব’ নিয়ে আলোচনার ঝড় উঠেছে দেশের শোবিজ অঙ্গনে। বলিউড অভিনেতা ইরফান খানকে নিয়ে ‘ডুব’ নির্মাণ করছেন ফারুকী। সিনেমাটির কাহিনী নিয়ে শুরু থেকেই গোপনীয়তা রক্ষা করছেন এর নির্মাতা ও কলা-কুশলীরা। শুটিং-ডাবিং শেষ করে এখন সিনেমাটি মুক্তির অপেক্ষায়।
ঠিক তখনই কলকাতার শীর্ষস্থানীয় পত্রিকা আনন্দবাজার জানালো বাংলাদেশের প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের জীবনী নিয়ে নির্মিত হচ্ছে ফারুকীর ‘ডুব’। এতে হুমায়ূনের চরিত্রে অভিনয় করছেন ইরফান খান। এ নিয়ে গতকাল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নানা রকম মন্তব্য দেখা গেছে। সিনেমা সংশ্লিষ্টদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষও মন্তব্য করছেন। এদিকে গোপনে হুমায়ূন আহমেদের জীবনী নিয়ে সিনেমা নির্মাণের বিষয়ে অনেককেই ফেসবুকে ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা গেছে। ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন হুমায়ূনের স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন। অভিনেত্রী শাওন বলেন, ‘এখনই এই বিষয়ে কথা বলার সময় আসেনি। তবে আমি আইনজীবীর সঙ্গে কথা বলে জানার চেষ্টা করছি। সময় হোক, আইনের আশ্রয় চাইবো।’
শাওন আরও বলেন, ‘এটা আমার কাছে যথেষ্ট বিরক্তিকর। খুব খারাপ লাগছে। এখনই এই বিষয়ে কিছু বলার সময় আসেনি। সময় হোক, তখন মন্তব্য করবো। আমি এই বিষয়ে আইন কি বলে সেটা বোঝার চেষ্টা করছি।’
আনন্দবাজারে প্রকাশিত “হুমায়ূন আহমেদের ‘নতুন উপন্যাস’ ইরফান” শিরোনামের প্রতিবেদনটির শুরুতে বলা হয়, মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর ‘ডুব’ ছবিতে ইরফান খান অভিনয় করছেন বাংলাদেশের প্রখ্যাত সাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের চরিত্রে। গল্পটাও নাকি অনুপ্রাণিত তার জীবন থেকে। যদিও অভিনেতা থেকে পরিচালক কেউই এ ব্যাপারে ‘কনফার্ম’ করছেন না কিছুই। পত্রিকাটি জানায়, হুমায়ূনের চরিত্রে অভিনয় করেছেন বলিউডের ইরফান খান, তার মেয়ে শিলা আহমেদের চরিত্রে অভিনয় করছেন নুসরাত ইমরোজ তিশা। হুমায়ূনের প্রথম স্ত্রী গুলতেকিন খানের চরিত্রে অভিনয় করছেন রোকেয়া প্রাচী ও দ্বিতীয় স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন চরিত্রে অভিনয় করেছেন কলকাতার অভিনেত্রী পার্নো মিত্র।
যদিও ফারুকী এটিকে হুমায়ূনের জীবনীভিত্তিক নয় বলে দাবী করেছেন। ফারুকী বলেন, ‘আমি চাইছি দর্শক ছবিটা দেখুক আগে। আমি নিজেও হুমায়ূন আহমেদের বিরাট ফ্যান। এটুকুই বলব, আমি একটা পরিবারের গল্প বলছি, কয়েকজন মানুষের ভালোলাগা, দুঃখ, ক্ষোভ, হিংসাÍ এই আবেগগুলো ফুটিয়ে তুলতে চেয়েছি। সেটা কার জীবন অবলম্বনে, সেটার বিচার ছবি দেখার পরে হলেই ভালো’।
ফারুকী আরও বলেন, ‘আমাদের তরফ থেকে আমি পরিষ্কার করে বলছি, ছবির ক্রেডিট বা ক্যাম্পেইনে বা কমিউনিকেশন ম্যাটেরিয়েলে আমরা কখনোই দাবি করি নাই বা করার কোনো সম্ভাবনাও নাই যে ‘আমরা হুমায়ুন আহমেদের বায়োপিক বানাচ্ছি’। আমরা কোনো বায়োপিক বানাচ্ছি না।’

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here