সাত বছর কারাবন্দি ৪ নারীকে আদালতে হাজিরের নির্দেশ

0
89

নিজস্ব প্রতিবেদক : চারটি হত্যা মামলায় সাত বছর ধরে ‘বিনা বিচারে’ কারাবন্দি চার নারীকে আদালতে হাজিরের নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট। তাদের কেন জামিন দেওয়া হবে না- তা জানতে চেয়ে একটি রুলও জারি করা হয়েছে। বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি জে বি এম হাসানের হাইকোর্ট বেঞ্চ বুধবার এ আদেশ দেয়। আগামী বছরের ১৬ জানুয়ারি ওই চার নারীকে হাইকোর্টে হাজির করতে কাশিমপুর কেন্দ্রীয় মহিলা করাগারের কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সুপ্রিম কোর্ট লিগ্যাল এইড কমিটির প্যানেল আইনজীবী আইনুন নাহার সিদ্দিকা চার নারীর কারাবন্দি থাকার বিষয়টি আদালতের নজরে আনার পর হাইকোর্টের এ নির্দেশনা আসে।

এই চার নারী হলেন, সুমি আক্তার রেশমা, শাহনাজ বেগম, রাজিয়া সুলতানা ও রাণী ওরফে নুপুর।

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা উপজেলার ধর্মগঞ্জের আশরাফ আলীর মেয়ে সুমি আক্তার রেশমা রাজধানীর শ্যামপুর থানার ২০০৮ সালের একটি হত্যা মামলায় ২০০৯ সালের ১৫ জানুয়ারি গ্রেপ্তার হন। তখন থেকেই তিনি কারাগারে। ঢাকার মহানগর অতিরিক্ত দায়রা জজ আদালতে বিচারাধীন এ মামলায় ৫০ বার হাজির করা হয়েছে রেশমাকে। সর্বশেষ চলতি বছর ১৬ সেপ্টেম্বর তাকে হাজির করা হয়।  নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলার ইলমদি গ্রামের আলম খালাসীর মেয়ে শাহনাজ বেগম কারাগারে আছেন ২০০৮ সাল থেকে। ঢাকার দোহার থানার একটি হত্যা মামলায় ওই বছর ১৬ সেপ্টেম্বর থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। মামলাটি বর্তমানে ঢাকার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতে বিচারাধীন। চলতি বছরের ১৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৭৬ বার তাকে ওই আদালতে হাজির করা হলেও বিচার শেষ হয়নি।

গাজীপুরের টঙ্গী থানার বেদে বহর এলাকার উকুল উদ্দিনের মেয়ে রাজিয়া সুলতানা তুরাগ থানার এক হত্যা মামলায় ২০০৯ সালের ২১ মে গ্রেপ্তার হন। ঢাকা মহানগর অতিরিক্ত দায়রা জজ আদালতে বিচারাধীন এ মামলায় ৬০ বার তাকে হাজির করা হয়েছে। সর্বশেষ চলতি বছরের ৯ আগস্ট তাকে হাজির করা হয়।

রাণী ওরফে নুপুর ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলার বোরকা নতুন বাজার গ্রামের চান মিয়ার মেয়ে। ঢাকার রমনা থানায় ২০০৯ সালে দায়ের হওয়া একটি হত্যা মামলায় ওই বছর ২১ নভেম্বর তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। ঢাকার বিশেষ জজ আদালতে বিচারাধীন এ মামলায় ৬৫ বার তাকে হাজির করা হয়েছে। সর্বশেষ চলতি বছরের ২১ আগস্ট তার হাজিরার দিন ছিল।

 

 

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here