কুমড়া গাছ নিয়ে কৌতূহল

0
393

কালীগঞ্জ (গাজীপুর) : গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলার তুমলিয়া ইউনিয়নের বান্দাখোলা গ্রামেরপ্রমেশ চন্দ্র ম-লের স্ত্রী পূর্ণলক্ষ্মী (৫৫) তিন মাস আগে বাড়ির আঙিনায় বপন করেছেন তিনটি মিষ্টি কুমড়ার বীজ। লক্ষ্মীর হাত দিয়ে বপন করা তিনটি বীজই গজিয়েছে। দেখতে দেখতে বড়ও হতে লাগল মিষ্টি কুমড়ার গাছগুলো। কিন্তু ১২ দিন আগে লক্ষ্মী হঠাৎ একদিন লক্ষ করলেন তার বপন করা তিনটি মিষ্টি কুমড়া গাছের মধ্যে একটি গাছের হঠাৎ পরিবর্তন। তিনি গাছটির পরিবর্তন দেখেপ্রতিবেশীদের ডেকে দেখান। আরপ্রতিবেশীরা দেখেন মিষ্টি কুমড়া গাছের একটি শাখা লতা অজগর সাপের  মতো প্যাঁচানো ও মোটা এবং গাছটির ঠিক সামনে কোবরা সাপের মতো ফণা তোলা।
এভাবেই একটি মিষ্টি কুমড়া গাছ সবার মুখে মুখে হয়ে গেল ‘সাপ’! জানা যায়,প্রকৃতির এ অলৌকিক পরিবর্তন দেখতে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষেপ্রতিদিন কালীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন এলাকাসহ গাজীপুর সদর, টঙ্গী, কালিয়াকৈর, শ্রীপুর ও পার্শ্ববর্তী নারায়ণগঞ্জ, নরসিংদী এবং ময়মনসিংহ জেলার হাজার হাজার মানুষ ভিড় করছে। সরেজমিনে গিয়ে মিলল ঘটনার সত্যতা। দূরদূরান্তের বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা লোকজন ভিড় করছে ‘সাপ’ হয়ে যাওয়া মিষ্টি কুমড়া গাছটি একনজর দেখতে। দর্শনার্থীদের কেউ কেউ আবার টাকাপয়সাও দিচ্ছেন বিভিন্ন মানত করে মনোবাসনা পূরণের জন্য। গাজীপুর সদরের বড় কয়ের গ্রামের জুয়েলারি ব্যবসায়ী উজ্জ্বল দাস (২৪) ও উপজেলার তিরিয়া গ্রামের গৃহিণী চিত্রা রোজারিও সবার মতো  খবর শুনে এসেপ্রকৃতির অলৌকিক এ ঘটনা দেখে বিস্মিত হন। কিছু নগদ অর্থ মানত হিসেবে দান করেন তারা। আর এভাবে গত কয়েক দিনে বেশ কিছু টাকা জমা হয়েছে। জমাকৃত টাকা কী করা হবে জানতে চাইলে পূর্ণলক্ষ্মী জানান, তিনি হতদরিদ্র ও অভাবি হলেও জমাকৃত টাকা সংসারের কোনো কাজে লাগাবেন না। এ টাকা দিয়ে আগামী রোববার মনসা পূজার অনুষ্ঠান করা হবে। লক্ষ্মী আরো জানান, দুই দিন আগে তাকে স্বপ্নে দেখিয়েছে কুমড়া গাছটিতে সাপ রয়েছে, এর কোনো ক্ষতি না করে মনসা পূজা দেওয়ার জন্য।
এদিকে এলাকাবাসী বলছে, লক্ষ্মীর ঘরে পূর্ণলক্ষ্মী এসেছে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মো. আবুবকর মিয়া বাক্কু জানান, এমন একটি ঘটনার কথা শুনে দেখতে গিয়েছেন এবংপ্রকৃতির অপার খেয়ালে তিনি নিজেও অবাক হয়েছেন। ইউপি সদস্য ফালান ম-ল বলেন, তার ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডে এমন একটি ঘটনায় দূরদূরান্তের বিভিন্ন এলাকা থেকে মানুষ ছুটে আসছে শুধু একনজর দেখার জন্য।

Share on Facebook

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here