admoc
Kal lo

,

admoc
Notice :
«» সোনারগাঁওয়ে বিনামূল্যে চিকিৎসা দিচ্ছেন ডা. মাহমুদা আক্তার «» অর্থের অভাবে সম্পন্ন হচ্ছে না বাউফল পৌরসভার একাধিক প্রকল্প «» ধামরাইয়ে কালামপুর বাজার বণিক সমিতির ফুটবল খেলা টাইব্রেকারে জয় বাংলা একাদশ «» বিএনপিকে পরাজিত করে বিজয়ী হব : কাদের «» আন্তর্জাতিক তথ্য-উপাত্ত বলছে পৃথিবী সম্পূর্ণ উল্টোপথে হাটছে পৃথিবীতে রাত হারিয়ে যেতে বসেছে «» প্রাথমিক সমাপণী পরীক্ষার প্রশ্নে ভুল দায় কার-দায়ী কে? «» বারী সিদ্দিকী আর নেই «» রোহিঙ্গাদের নিরাপদে ফেরার পরিস্থিতি এখনও হয়নি : জাতিসংঘ «» জিম্বাবুয়ের নতুন প্রেসিডেন্টের শপথ গ্রহণ «» গাজীপুরে রেল ক্রসিংয়ে ট্রাক সংঘর্ষ ট্রেনের সহকারী চালক নিহত

পাওনা টাকা চাওয়ার অপরাধে আমতলীতে সন্ত্রাসীরা হাত ভাঙ্গল সুজনের

Untitled-38

বরগুনা প্রতিনিধি: বরগুনার আমতলী উপজেলার গোছখালী গ্রামে শুক্রবার বিকেলে পাওনা টাকা চাওয়ার অপরাধে ৬-৭ জন সন্ত্রাসী মিলে পিটিয়ে সুজন চন্দ্র মন্ডল (২৫) নামে এক সংখ্যালঘু পরিবারের সদস্যের হাত ভেঙ্গে দিয়েছে। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে পটুয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এখন মামলা না করার জন্যও ওই পরিবারটিকে শাসানো হচ্ছে। ফলে আতঙ্কের মধ্যে দিয়ে দিন কাটাচ্ছে পরিবারটির লোকজন।
একালাবাসী এবং প্রত্যাক্ষ দর্শী সূত্রে জানা গেছে, গোছখালী গ্রামের নিমাই চন্দ্র মন্ডলের ছেলে সুজন চন্দ্র মন্ডল ভাড়ায় এলাকায় মটর সাইকেল চালান। ওই একই গ্রামের চান মিয়া দফাদারের ছেলে টিটু দফাদার প্রায়ই সুজন মন্ডলের মটর সাইকেলে বাকিতে বিভিন্ন জায়গায় যাতায়ত করেন। এতে তার ভাড়া বাকি পড়ে সাড়ে ৬শ’টাকা। শুক্রবার বিকেলে গোছখালী বাজারে বসে ভাড়ার ওই ৫শ’ টাকা চাইতে গেলে টিটু দফাদারের সাথে বাক বিতন্ডা হয়। এক পর্যায়ে টাকা চাওয়ার অপরাধে ক্ষিপ্ত হয়ে টিটিু দফাদারের নেতৃত্বে  মঞ্জু দফাদার,  হাসান  আকন, সুমন দফাদার, জাকির হোসেন, হৃদয় দফাদারসহ ৬-৭ জন সন্ত্রসী মিলে সুজন মন্ডলের উপর হামলা করে। তারা লোহার রড এবং লাঠি দিয়ে পিটিয়ে সুজনের বাম হাত ভেঙ্গে দেয় এবং শরীরের বিভিন্ন জায়গায় পিটিয়ে জখম করে রাস্তায় ফেলে রেখে যায়। এসময় সন্ত্রাসীরা সুজনের মটর সাইকেলটিও পিটিয়ে চুর্ন বিচুর্ন করে। স্বজনরা খবর পেয়ে তাকে উদ্ধার করে শুক্রবার রাতে  পটুয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। এর আগেও বিকেল ৪টার সময়ও টিটুর সাথে ভাড়ায় যেতে রাজি না হওয়ায় বাড়ির দরজার সামনে বসে সুজন মন্ডলকে মারধর করে টিটু দফাদার ও তার লোকজন বলেও অভিযোগ করেন সুজন মন্ডলের পরিবার।
সুজনের বড় ভাই সমির মন্ডল জানান, পাওনা টাকা চাওয়ার অপরাধে সুজনকে রড ও লাঠি দিয়ে পিটিয়ে বাম হাত ভেঙ্গে দিয়েছে। শরীরের বিভিন্ন জায়গায় রক্তাত্ব জখম করেছে।  তিনি আক্ষেপ করে বলেন, এভাবে চোর ডকাতকেও কেউ পিটায়না। তিনি আরো জানান, টিটু দফাদারের রয়েছে এলাকায় ৬-৭ জনের একটি বাহিনী তাদের ভয়ে এলাকার লোজন তাদের বিরুদ্ধে কোন কথা বলার সাহস পায়না। আমরা এখানে মাত্র কয়েক ঘড় হিন্দু পরিবার রয়েছি। আমাদের উপর কারনে অকারনে নির্যাতর ও হামলা করে। এমনকি হিন্দু ধর্মীয় অনুষ্ঠানাদি পালন করতেও  তাদের চাঁদা দিতে হয়। তিনি আরো জানান, এঘটনায় আমরা যাতে থানায় মামলা না করি সে জন্যেও হুমকি দিচ্ছে। ফলে এখন আমরা আতঙ্কের মধ্যে দিয়ে দিন কাটাচ্ছি।
প্রত্যাক্ষ দর্শী গোছখালী বাজারের চা বিক্রেতা মো: ইব্রাহিম জানান, পাওনা টাকা চাওয়ার অপরাধে সুজনকে রাস্তায় ফেলে টিটু দফাদারের নেতৃত্বে ৬-৭ জন সন্ত্রাসী বাহিনী লাঠি ও লোহার রড় দিয়ে পিটিয়ে হাত ভেঙ্গে দেয় এবং মারাত্বক জখম করে। টিটুর ভয়ে আমরা কেউ সুজনকে রক্ষার সাহস পাইনি।
সুজন মন্ডল কান্না জরিত কন্ঠে হাসপাতাল হাসপাতাল সয্যায় সুয়ে জানান, মুই গরীব মানুষ মটর সাইকেল ভাড়ায় চালাইয়া সংসার চালাই। মুই টিটু দফাদারের কাছে  পিছনের ভাড়া বাবদ সাড়ে ৬শ’ টাহা পাই। হেই টাহা চাইতে যাওয়ায় টিটু ও তার ৬-৭ জন লোক বাাঁশের লাঠি আর রড দিয়া মোরে পিডাইয়া হাত ভাইঙ্গা দেছে। হের পর শরীরের সব জায়গায় পিডাইছে। এর আগে বিকালেও অর লগে ভাড়ায় যাইতে চাই নাই দেইখ্যা মোরে বাড়ির দরজায় হালাইয়া মারছে টিটু।
অভিযুক্ত টিটু দফাদার মারধরের কথা স্বীকার করে বলেন, সামন্য মাইর ধইর করেছি । পাওনা টাকার কথা সম্পূর্ন অস্বীকার করেন।  আরেক সহযোগী সুমন দফাদার মার ধরের কথা স্বীকার করে বলেন,  আমার হাতে  একটি লাঠি ছিল তা দিয়ে সামন্য আঘাত করেছি।
গুলিশাখালী ইউপি চেয়ারম্যান এ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম মার ধরের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, টিটু দফারকে মিমাংসার জন্য আমি ডেকেছি কিন্তু তারা প্রভাবশালী হওয়ায় আসছে না।
আমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: সহিদ উল্ল্যাহ জানান, এব্যাপারে এখনো কোন মামলা হয়নি। মামলা হলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
আমতলীর বিদ্যুৎস্পৃষ্ট সুমাইয়াকে ১লক্ষ টাকার চেক প্রদান করলেন প্রধানমন্ত্রী
বরগুনা প্রতিনিধিঃ
বরগুনার আমতলী উপজেলার আমতলী এ.কে পাইলট হাই স্কুলের ৭ম শ্রেণির ছাত্রী সুমাইয়া (১২) কে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে এক লক্ষ টাকার চেক প্রদান করা হয়েছে। শনিবার দুপুরে সুমাইয়ার পল্লবীর বাসায় এসে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলের চেক সুমাইয়ার হাতে তুলে দেন বরগুনা জেলা আওয়ামীলীগ এর সদস্য ও বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন পটুয়াখালী ও বরগুনা জেলা শাখার সমন্বয়কারী আলহাজ¦ গোলাম সরোয়ার ফোরকান। এ সময় আমতলী উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. এম.এ কাদের মিয়া, পটুয়াখালী জেলা মানবাধিকার কমিশনের সাধারণ সম্পাদক মোল্লা নাসির উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাড. মোঃ রফিকুল ইসলাম, আইন উপদেষ্টা এ্যাড. আবু ইউসুফ পাশা এবং বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন আমতলী উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মোঃ রেজাউল করিম উপস্থিত ছিলেন। রাজমিস্ত্রী শামীম হাওলদার এর মেয়ে সুমাইয়া ভাড়াটিয়া বাসার ছাদে খেলতে গিয়ে ২০১৬ সালের মার্চ মাসে বিদ্যুৎ স্পৃষ্ট হয়। সুমাইয়ার বাম পা ও বাম হাত সম্পূর্ণ পঙ্গু হয়ে যায়। প্রধানমন্ত্রী বরাবর সুমাইয়ার বাবা সাহায্যের জন্য আবেদন করলে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে ১লক্ষ টাকার চেক প্রদান করা হয়।

Share Button
Share on Facebook

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী