তারেকের শাশুড়ির বিরুদ্ধে দুদকের মামলা আপিল বিভাগে বাতিল

0
218

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের শাশুড়ি সৈয়দা ইকবাল মান্দ বানুর বিরুদ্ধে বিচারিক আদালতে করা দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদকের মামলা বাতিল করেছে আপিল বিভাগ। একইসঙ্গে ওই নোটিসের কার্যকারিতা বাতিল করে সম্পদ বিবরণী চেয়ে ফের নতুন করে নোটিস দেওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। ইকবাল মান্দ বানুর লিভ টু আপিল নিষ্পত্তি করে প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ গতকাল এ রায় দেয়। আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলী। সঙ্গে ছিলেন ব্যারিস্টার কায়সার কামাল, রাগিব রউফ চৌধুরী ও জাকির হোসেন ভূইয়া। দুদকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী খুরশিদ আলম খান ও রাষ্ট্রপক্ষে অ্যার্টনি জেনারেল মাহবুবে আলম। পরে খুরশিদ আলম খান সাংবাদিকদের জানান, সম্পদ বিবরণী চেয়ে দেওয়া নোটিসের প্রেক্ষাপটে করা মামলা বাতিল করে দিয়েছে। নতুন করে নোটিশ দেওয়ার জন্য দুদককে নির্দেশ দিয়েছেন আপিল বিভাগ। আবেদনকারী পক্ষের আইনজীবী ব্যারিস্টার কায়সার কামাল বলেন, “নোটিস দেওয়ার সময় ইকবাল মান্দ বানু দেশে ছিলেন না। তার তত্ত্বাবধায়কের কাছে নোটিশ দেওয়া হয়। এ যুক্তিতে আদালত মামলাটি বাতিল করে দিয়েছেন। তবে সম্পদের হিসাব বিবরণী চেয়ে দুদক নতুন করে নোটিস দিতে পারবে।
বিচারিক আদালতে থাকা এ মামলায় দেড় বছর আগে অভিযোগপত্র দেওয়া হলেও কয়েক দফা পিছিয়ে ১৬ অগাস্ট অভিযোগ গঠনের শুনানির জন্য রাখা ছিল। জরুরি অবস্থার সময় ২০০৭ সালে তারেক রহমানের অবৈধ সম্পদের অনুসন্ধান চলাকালে ইকবাল মান্দ বানুর নামে-বেনামে ‘বিপুল পরিমাণ সম্পদ থাকার তথ্য পেয়ে’ ২০১২ সালের ২৫ জানুয়ারি তার সম্পদের হিসাব চেয়ে ওই নোটিশ দিয়েছিল দুদক। এরপর নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে তিনি সম্পদ বিবরণী না দেওয়ায় ২০১৪ সালের ৩০ জানুয়ারি দুদকের উপ-পরিচালক আর কে মজুমদার ঢাকার রমনা থানায় এ মামলা দায়ের করেন। তদন্ত শেষে ২০১৬ সালের ১৯ জানুয়ারি দুদকের উপ-পরিচালক আবদুস সাত্তার সরকার ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে ওই অভিযোগপত্র দিলে ২৬ জানুয়ারি হাই কোর্টে একটি রিট আবেদন করেছিলেন তারেকের শাশুড়ি। ওই আবেদনে দুদকের নোটিস বাতিল করে নতুন নোটিস দেওয়ার নির্দেশনার পাশাপাশি মামলার পরবর্তী কার্যক্রম পরিচালনা না করার আরজি জানানো হয়। আবেদনটি গত বছরের ২ ফেব্রুয়ারি বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি আমির হোসেনের হাই কোর্ট বেঞ্চে খারিজ হয়ে গেলে এর বিরুদ্ধে একই বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারি লিভ টু আপিল করেন ইকবাল মান্দ বানু। ওই আবেদনের শুনানি নিয়ে আবেদনটির নিষ্পত্তি করে বৃহস্পতিবার রায় দিল আপিল বিভাগ। সম্পদের হিসাব চেয়ে দুদক ২০১২ সালে নোটিস পাঠানোর পরও হাই কোর্টে রিট আবেদন করেছিলেন ইকবাল মান্দ বানু। ওই আবেদনে নোটিসের বিরুদ্ধে তিনি স্থগিতাদেশ পেলেও দুদক আপিল করলে হাই কোর্টের ওই আদেশ স্থগিত হয়ে যায়।  এরপর নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ইকবাল মান্দ বানু সম্পদ বিবরণী না দেওয়ায় দুদক তার বিরুদ্ধে মামলাটি করেছিল।

Share on Facebook